অলোক আচার্য, পানিহাটিঃ- ফের ব্যারাকপুর কমিশনারেটে শুট আউট। এবারও তৃণমূল নেতা। ভরসন্ধ্যা বেলায় দুষ্কৃতীদের গুলিতে মৃত্যু হল সদ্য জয়ী জনপ্রিয় তৃণমূল কাউন্সিলার অনুপম দত্ত (ধলু)। ঘটনাটি ঘটেছে আগরপাড়া মহাজ্যোতি নগর এলাকায়, পানিহাটি পুরসভার আট নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর অনুপম দত্তের বাড়ির পাশেই ঘটনাটি ঘটে। প্রতিবাদে অনুগামীদের রাস্তা অবরোধ। ঘটনার তদন্তে ঘোলা থানার পুলিশ। গুলির ঘটনায় ঘটনাস্থলে যান বারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা সহ পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার সন্ধে বেলায় কাউন্সিলার অনুপম দত্ত বাড়ির কাছেই পোষ্যর জন্য ওষুধ কিনতে বেরিয়েছিলেন। ওষুধ কিনে দোকান থেকে নামার সময় অনুপম দত্তকে বাইকে করে এসে ৪ জন দুষ্কৃতী গুলি করে বলে অভিযোগ। সামনে থেকেই তাকে গুলি করে। একটি গুলি মাথায় এবং একটি গুলি কাঁধে লাগে অনুপম দত্তের। স্থানীয়রা আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে সাগর দত্ত হাসপাতালে নিয়ে যায়, পরবর্তীতে সেখান থেকে স্থানান্তরিত করা বেলঘড়িয়া একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে। সেই বেসরকারি নার্সিং হোমেই অনুপম দত্তের মৃত্যু হয় বলে জানা যায়। এরপরই এলাকায় উত্তেজনা শুরু হয়। প্রতিবাদে আগরপাড়ায় বিটি রোড অবরোধ করেন তাঁর অনুগামীরা। খুনীদের শাস্তির দাবিতে সরব এলাকাবাসীও। এলাকাবাসীর আপদবিপদে সবসময় পাশে দাঁড়াতেন তিনি।

ঘটনার পর ঘটনাস্থলে আসে পানিহাটির বিধায়ক নির্মল ঘোষ। তিনি জানান, এটা রাজনৈতিক বড় চক্রান্ত, কাউকে ছাড়া হবে না। বেশিদূর পালিয়ে যেতে পারবে না অপরাধীরা। এই মহাজ্যোতি এলাকা থেকে জলজ্যান্ত ছেলেটাকে মেরে পালাতে পারবে না, কাউকে ছাড়া হবে না। বিধায়ক নির্মল ঘোষ বলেন এটা রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র। এর পিছনে কে কারা আছে তদন্ত হবে।পুলিশ প্রশাসন রয়েছে। বিগত দশ বছরে এই ধরনের কোন খুন বা মার্ডার হয় নি। মহাজাতি নগরে এই ধরনের জঘন্য তম অপরাধ মেনে নেওয়া যায় না। সুবিচার হবে। দোষী রা শাস্তি পাবেই।