কোভিড ১৯ কে জয় করা আমাদের লক্ষ্যঃ- জ্যোতিপ্রিয়

0

অলোক আচার্য, ব্যারাকপুরঃ- ভিন রাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিকরা ঘরে ফিরছে। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন স্কুল কলেজে হোম কোয়ারেন্টাইন সেন্টার চালু করা নিয়ে বাড়ছে বিক্ষোভ অশান্তি। তেঘরিয়া শশীভূষন হাই স্কুলে হোম কোয়ারেন্টইন সেন্টার চালু করা নিয়ে স্হানীয় বিডিও ও পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির কোন্দল মীমাংসা নিয়ে ব্যারাকপুর বিডিও অফিসে সোমবার বিকেলে জরুরি সভা করেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

ছিলেন বিডিও অনামিকা বেরা সাহা,ব্যারাকপুর২ ব্লকের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সুপ্রিয়া ঘোষ, বিধায়ক নির্মল ঘোষ, জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি কৃষ্ণ গোপাল বন্দোপাধ্যায়, খড়দহ পুরসভার চেয়ারপার্সন কাজল সিনহা, প্রবীর রাজবংশী সহ বিভিন্ন পঞ্চায়েতের সদস্যরা।

জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, ভিন রাজ্য থেকে যেসব পরিযায়ী শ্রমিকরা আসছেন, তাদের জন্য এই কোয়ারেন্টিন সেন্টার। পরিযায়ী শ্রমিকদের যাতে কোনরকম অসুবিধা না হয়, কোনোরকম সমস্যার সম্মুখীন না হতে হয়, তাই এখানে রেখে তাদের পর্যবেক্ষণ করা হবে, যাদের মধ্যে সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দেবে, তাদের পাঠানো হবে হাসপাতালে। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কোভিড ১৯ কে জয় করা আমাদের প্রধান লক্ষ্য। এবং চ্যালেজ্ঞ। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী করে দেখাবেন।

দিলীপ ঘোষের মন্তব্যের কোনোরকম জবাব আমরা দেবো না। দিল্লি থেকে তো পারলে ৫০হাজার – দুই লাখকে পাঠিয়ে দেয়। দিলীপ ঘোষ সেদিকে লক্ষ্য করুন। বাড়িতে বসে কুকথা অকথা বলছে। বিধ্বস্ত ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত দুই ২৪ পরগনা দেখে আসুক। নিজের স্বচক্ষে। যাকনা গাইঘাটা, বাগদা, সুন্দরবন এলাকায়। আমাদের মুখ্যমন্ত্রী যে চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন, মানুষকে ভালো রাখার, তা আর কোনো রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নিতে পারেননি। একদিকে করোনা অন্যদিকে আমফান — এই দুইয়ের থেকে মানুষকে ভালো রাখার দায়িত্ব নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। আমাদের কর্তব্য তাকে সাহায্য করা, তার পাশে থাকা। শান্ত বাংলা শান্ত থাকবে অশান্তি করতে দেব না। কি জন্য মারামারি গন্ডগোল করব। উন্নয়নের মধ্যে দিয়ে মানুষকে বোঝাব। মারদাঙ্গা করতে দেব না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

two × two =