নিজস্ব সংবাদদাতা, কলকাতা ও বীজপুর :- ৬ বছরের জন্য তৃণমূল থেকে সাসপেন্ড করা হল মুকুল পুত্র তথা বীজপুর বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়কে। আজ সাংবাদিক বৈঠক করে এমন কথাই জানালেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, অনেক দিন নানান রকম কথা বলছিল শুভ্রাংশু। শুভ্রাংশু অনেক সময় ধরেই এক দলে থেকে অন্য দলের প্রশংসা করে যাচ্ছে। কাজেই দল অপেক্ষা করছিল। ভোটের জন্য কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। কিন্তু বদলায়নি কিছুই। তাই এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে দল। সে তৃণমূলে থেকে দলকে হেয় করছে , তাই তাঁর বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পার্থ বাবু আরও বলেন, দলের শৃঙ্খলা বজায় রাখা সবার আগে প্রয়োজন। কোনও কিছুতেই মাথা গরম করবে না কেউ।

আজ সকালে সাংবাদিক সম্মেলন ডাকেন বীজপুর বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়। তিনি বলেন, ‘আমি দল এখন ছাড়ছি না। কিন্তু দল কি আমায় বিশ্বাস করছে? সেটাও আমি জানি না। পরিবার, দলের ছেলে, বন্ধুদের কাছেও কৈফিয়ত দিতে হচ্ছে। সম্প্রতি, তৃণমূল ছেড়ে যখন মুকুল রায় বিজেপি যোগদান করে। সেই সময় পার্থ চট্টোপাধ্যায় ‘কাঁচরাপাড়ার কাঁচাছেলে’ বলে কটাক্ষ করেছিলেন মুকুল রায়কে। সেই প্রসঙ্গ তুলে এনে এদিন শুভ্রাংশু রায় বলেন, কেউ বা কারা বলেছে কাঁচরাপাড়ার কাঁচা ছেলে। এটা মানুষ মেনে নেয়নি। বাবাকে নিয়ে আমি গর্ববোধ করি। কাঁচরাপাড়ার কাঁচা ছেলেটাই কাঁচা মাথা দিয়ে চাণক্যর বুদ্ধিতে সারা বাংলা চষিয়ে বেড়ালো। এরপর তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে বলেন, যাকে আমি মমতাময়ী মা ভাবি, তিনিও আমায় বললেন গদ্দারের ছেলে। বাংলার সংস্কৃতিতে গদ্দারের ছেলে ভাষাটা মানানসই না। বিবেকে লাগছে।
মুকুল পুত্রের মুখ থেকে এমন মন্তব্যের পর,
ওই সাংবাদিক বৈঠকের খবর চলে যায় কালিঘাটেও। তার পরই তৃণমূলের তরফে জানানো হয়, বিকালে তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় সাংবাদিক বৈঠক করেন। তিনি জানিয়ে দেন, দলবিরোধী মন্তব্যের জন্যই শুভ্রাংশু রায়কে সাসপেন্ড করা হল। এদিকে ছেলেকে দল থেকে সাসপেন্ড করা নিয়ে মুকুল রায় বলেন, এটা ওদের দলের ব্যাপার। তবে শুভ্রাংশু বিচক্ষণ ছেলে। ও যেটা ভাল বুঝবে সেটা করবে। দল থেকে সাসপেন্ড হবার পর শুভ্রাংশু রায় বলেন, অনেকদিন পর খোলা হাওয়ায় শ্বাস নিতে পারব। এদিন তিনি পালটা তৃণমূলকেই আক্রমণ করেন।

ইতি মধ্যেই রাজনৈতিক মহলে উঠছে নানা প্রশ্ন, কৌতূহল বাড়ছে কর্মী- সমর্থক থেকে মানুষের মনে। তাহলে কি এবার মুকুল পুত্রও বাবার দেখানো পথেই হাঁটতে চলেছেন। কবে বিজেপিতে যোগ দেবে? সেটাই এখন দেখার।