নিজস্ব সংবাদদাতা, বর্ধমান :- অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক স্ত্রী থাকা সত্বেও এক মহিলাকে বিয়ে করেছেন। এখানেই থেমে নেই, ইতিমধ্যেই আরও এক মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে তার। শুরু হয় প্রথম স্ত্রীর উপর অত্যাচার। মাসখানেক আগে স্ত্রী রিপ্তা ঘোষ মেয়ের বাড়ি গেলে বাড়ি ঘর বিক্রি করে পালিয়ে যান স্বামী গঙ্গাধর ঘোষ। ঘর বাড়ি ও অধিকারের দাবীতে ধর্নায় বসেছেন স্ত্রী। এই ঘটনা খোদ বর্ধমান শহরে।

শুক্রবার বিকালে বর্ধমান শহরের ৩ নম্বর ইছলাবাদে নিজের বাড়ির সামনে হাতে পোষ্টার নিয়ে ধর্নায় বসেছেন রিপ্তা ঘোষ।সাদা পেপারে নীল কালিতে পোষ্টারে লেখা, “স্বামী ও ছেলের দ্বারা অন্ন ও বাসস্থান থেকে বঞ্চিত হয়ে পথে বসেছি। আমি সুবিচার চাই” । রিপ্তা দেবী জানান, ১৯৭১ সালে তার বিয়ে হয় স্কুল শিক্ষক গঙ্গাধর ঘোষের সঙ্গে। ২০১০ সালে স্কুল থেকে অবসর নেন গঙ্গাধরবাবু। এরপর কাউকে কিছু না জানিয়ে উধাও হয়ে যান। পরে জানা যায়, তিনি দুর্গাপুরে এক মহিলাকে বিয়ে করেছেন। এই ঘটনার পর অশান্তি শুরু হয়। রিপ্তাদেবীর উপর অত্যাচার শুরু হয় । কিন্তু ছেলের ভবিষ্যতের কথা ভেবে রিপ্তা দেবী সব সহ্য করে নেয়। সম্প্রতি সাধনপুরের এক মহিলার সঙ্গে তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তিনি ওই মহিলার সঙ্গেই থাকতেন। এই নিয়ে অশান্তির জেরে মাসখানেক আগে মেয়ের বাড়ি চুঁচুড়ায় যান রিপ্তা দেবী। গত ২৫ জুলাই তিনি বাড়ি ফিরে দেখেন, তার বাড়িতে অন্য কেউ বাস করছেন। তিনি জানতে পারেন, তার স্বামী পাড়ার এক ব্যক্তিকে বাড়ি বিক্রি করে দিয়েছেন। শুধু বাড়ি বিক্রিই নয়, ঘরে থাকা সব জিনিষও নাকি বিক্রি করে দিয়েছেন। তারপর থেকে সুবিচারের আশায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন বৃদ্ধা।

রিপ্তা দেবী জানান, এই বিষয়টি নিয়ে তিনি বর্ধমান থানায় অভিযোগ করেছেন । জানানো হয়েছে জেলা পুলিশ সুপারকেও, কিন্তু কোন সুরাহা না হওয়ায় তিনি এখন আত্মীয়ের বাড়িতে থাকছেন। কিন্তু সুবিচার চেয়ে এদিন ওই বাড়ির সামনেই তিনি ধর্নায় বসেন। রিপ্তা দেবীর কথায়- “আর আমার কোন উপাই ছিল না”। এদিন রিপ্তাদেবীর সঙ্গে ছিলেন তার মা নব্বই বছরের উর্মিলা ঘোষ এবং দুইও বোন পদ্মা ঘোষ, দুর্গা ঘোষ। তাঁরাও এই ঘটনার সুবিচার চাইছেন। টাকার কারণে রিপ্তাদেবীর ছেলেও এই ঘটনায় বাবার পক্ষে বলে দাবী করেছেন আত্মীয়স্বজনরা। তার ছেলে কলকাতায় থাকেন।

রিপ্তাদেবী বলেন বৃহস্পতিবার রাতের দিকে গঙ্গাধরবাবুকে এক মহিলার বাড়ি থেকে উদ্ধার করে মেয়ের বাড়ি চুঁচুড়ায় রাখা হয়েছে। তাঁকে খুব তাড়াতাড়ি বর্ধমান আনা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

six + twelve =