নিজস্ব প্রতিনিধি, বসিরহাটঃ- সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে পুলিস সুপারের অফিসের সামনে অবস্থান বিক্ষোভ বিজেপির। জানা যায়, রাজ্যে শেষ হয়েছে চারটি পৌরনিগমের পৌরনির্বাচন। সোমবারই ছিল তার ফল ঘোষণার দিন । উত্তর ২৪ পরগণার অন্তর্গত বিধাননগর পৌরনিগমের প্রায় সবকটি আসন দখল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। নির্বাচনের দিনে সন্ত্রাসের অভিযোগ উঠেছিল বিজেপির পক্ষ থেকে। যাকে কেন্দ্র করে সোমবার রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদ কর্মসূচির ডাক দেওয়া হয়েছিল বিজেপির রাজ্য কমিটির পক্ষ থেকে। এই দিন বিজেপির ঘোষিত কর্মসূচিকে সামনে রেখে ও আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি বসিরহাট মহকুমার বসিরহাট, টাকি ও বাদুড়িয়া এই তিনটি পৌরসভার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৈরি হওয়া সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে এদিন বসিরহাটে প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করে বিজেপির বসিরহাট সাংগঠনিক জেলা নেতৃত্ব।

বসিরহাট পুলিস জেলার পুলিশ সুপারের অফিসের সামনে অবস্থান বিক্ষোভের মধ্যে দিয়ে কর্মসূচি পালন করেন বিজেপি নেতারা। বসিরহাট জেলা সভাপতি তাপস ঘোষের নেতৃত্বে দেবদূত সংঘের মাঠ থেকে ইটিন্ডা রোড ধরে প্রতিবাদ মিছিলে পা মেলান দলীয় কর্মীরা।

কর্মসূচির বিষয়ে উল্লেখ করে জেলা সভাপতি তাপস ঘোষ বলেন, আজ টাকিতে ছটা ওয়ার্ডে আমরা প্রার্থী দিতে পারিনি। আমাদের প্রার্থীদের বাড়িতে গিয়ে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। একই পরিস্থিতি দেখতে পাচ্ছি বসিরহাট শহরে। বিগত দিনে বসিরহাটের এই দৃশ্যের সঙ্গে কেউ পরিচিত ছিল না। এখানে আমাদের প্রার্থীর বাড়িতে গিয়ে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। প্রার্থী পদ তুলে নেওয়ার জন্য ফোনে তৃণমূলের দাদাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছে। এইসব পরিস্থিতিকে মাথায় রেখে বসিরহাটের মানুষও চাইছিল আমরা তাদের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করি, প্রতিবাদে সামিল হই। সেই মতই আজকে আমাদের এই প্রতিবাদ কর্মসূচি’।

এদিন বিজেপির জেলা নেতৃত্বের পক্ষ থেকে বসিরহাট পুলিস জেলার পুলিস সুপারের কাছে একটা ডেপুটেশন পত্র জমা দেওয়া হয়। বসিরহাট বিজেপির অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন বসিরহাটের দক্ষিণের বিধায়ক সপ্তসী ব্যানার্জী। তিনি বলেন, উন্নয়নের কাছে পরাজিত বিজেপি। ওয়ার্ডে প্রার্থী খুঁজে না পেয়ে ভিত্তিহীন মিথ্যা অভিযোগ করার চেষ্টা করছে বিজেপি নেতৃত্ব।