সানওয়ার হোসেন, বারুইপুর :- স্ত্রী ও সন্তানকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা ব্যর্থ হয় কানাইয়ের অবশেষে ধরা পরে পুলিশের হাতে। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বারুইপুর থানার খারু পাতালিয়া এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় বৈশাখী মণ্ডল কুড়ি বছর আগে বিবাহ হয় চুনাখালি এলাকার রবি মন্ডল এর ছেলে কানাই মন্ডল এর সঙ্গে। কুড়ি বছর বৈবাহিক জীবনে একটি ছেলে এবং একটি মেয়ে রয়েছে। দিনের পর দিন বৈশাখীর উপরে অত্যাচার চালত জামাই সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন বলে অভিযোগ। শ্বশুরবাড়ির অত্যাচার সহ্য করে শ্বশুর বাড়িতেই ছিল বৈশাখী। কিন্তু বিগত এক বৎসর যাবত অত্যাচারের মাত্রা বেড়ে যায় সহ্য করতে না পেরে গৃহবধূ বাপের বাড়িতে চলে আসে গত সাত মাস আগে। কিন্তু জামাই কানাই মাঝেমধ্যে শ্বশুর বাড়িতে আসছিল। গতকাল রাতে শ্বশুর বাড়িতে আসে মদ্যপ অবস্থায়। স্ত্রী এবং শশুর বাড়ির লোকজন বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়।

হটাৎ আনুমানিক রাত্রি সাড়ে বারোটা নাগাদ ঘরে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। ভেতর থেকে বৈশাখী এবং ছেলে মেয়েরা চিৎকার করতে থাকে। দেখে ঘরের বাহির থেকে তালা দেওয়া। কোনোক্রমে বাইরে বেরিয়ে আসে। এলাকার মানুষ ছুটে এসে জল দিয়ে আগুন নেভাবার চেষ্টা করে, কিন্তু ঘরটি সম্পূর্ণ বশীভূত হয়ে যায়। পালাতে গিয়ে কানাই স্থানীয় লোকজনের হতে ধরা পড়ে। তাকে বিদ্যাপুর এলাকা থেকে নিয়ে বিদ্যুৎ পোস্টে বেঁধে রাখে। খবর যায় স্থানীয় থানায়, অবশেষে সকালে পুলিশ এসে জামাই কে গ্রেপ্তার করে, আজ তাকে বারুইপুর আদালতে তোলা হবে।