সনাতন গরাই, দুর্গাপুর :- ফেরিঘাট ভেঙেছে প্রায় মাসখানেক আগে। নৌকা ও বাঁশ কাঠের নড়বড়ে জেটির মাধ্যমে অজয় নদী পারাপার করে এই কয়েকমাস সাধারণ মানুষ ।চার মাস ধরে নৌকা ও বাঁশ কাঠের জেটি উপর পারাপার চলে ।এই রাস্তায় প্রত্যেকদিন প্রায় হাজার লোকের যাতায়াত।বাঁধ থাকলে প্রায় হাজার পণ্যবাহী ট্রাক থেকে ছোট গাড়ি সবই এই ফেরিঘাটের উপর ভরসা করে থাকে।বাঁধ ভেঙে যাওয়ার পরও নৌকা ও বাঁশের নড়বড়ে জেটির উপর সাইকেল, মোটরসাইকেল ও সাধারণ মানুষ সবই একসাথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করে।

লাগাতার নিন্মচাপের জেরে হিংলো জলাধার থেকে জল ছাড়াই অজয়ে জল বাড়ে যার জেরে বন্ধ হয়ে যায় নৌকা পরিষেবা।রাজ্য সরকারের অজয় নদের উপর স্থায়ী ব্রিজের কাজও শুরু হয়েছে মাস খানেক আগে থেকে।অতিরিক্ত বন্যার কারণে ব্রিজের কাজ এখন বন্ধ।জল বাড়ায় বীরভূম প্রশাসন রবিবার থেকে নৌকা চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়।

রবিবার থেকে বিচ্ছিন্ন বর্ধমান বীরভূম যোগাযোগ ব্যবস্থা। বিদবিহার গ্রাম পঞ্চায়েতের কৃষি, প্রাণী, মৎস্য দপ্তরের সঞ্চালক গিরিধারী সিনহা জানান অজয়ে অতিরিক্ত জল বাড়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। বুধবার জল কমলে স্বাভাবিক হয়ে যাবে নৌকা পরিষেবা। এখন ইলামবাজার সেতু দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে যার ফলে অনেকটা রাস্তা ঘুরতে হওয়ায় সাধারণ মানুষকে একটু সম্যসায় পড়তে হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর অজয় নদীর উপর স্থায়ী ব্রিজের কাজ ২০২১সালের মধ্যে সম্পূর্ণ করার নির্দেশ দেয়। এই ব্রিজের কাজ ও জোর কদমে চলছে।এই কাজ সম্পূর্ণ হলে বর্ধমান, বীরভূমের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থার আরো নিবিড় সম্পর্ক গড়ে উঠবে।