অলোক আচার্য, লেনিনগড়ঃ- শারদীয়া উৎসবের প্রাক্কালে খড়দহ বিধানসভার বিলকান্দা লেনিনগড়ে অসহায় মহিলাদের প্রীতি উপহার স্বরূপ শাড়ি এবং ডেঙ্গি প্রতিরোধে মশারি তুলে দিলেন রাজ্যের কৃষি মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় ও সাংসদ সৌগত রায়।

বুধবার সন্ধ্যায় লেনিনগড় মাতঙ্গিনী ভবন তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ে সামনে অস্থায়ী মঞ্চে বিলকান্দা ২ তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি সজল দাসের উদ্যোগে উৎসব প্রীতি উপহার প্রদান অনুষ্ঠানে এলাকায় মা বোনেদের মুখে হাসি ফোঁটাতে পেরে গর্বিত ও আনন্দিত রাজ্যের মন্ত্রী থেকে সাংসদ এবং লড়াকু তৃণমূল নেতা সজল দাস সহ বিশিষ্ট জনেরা।

সাংসদ বলেন, তৃণমূল কংগ্রেস শুধু ভোটের রাজনীতি করে না। শাড়ি দিলাম ভোট দেন। এখন ভোট নেই। মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে চেষ্টা করছে পরিবারের মুখে হাসি ফোঁটানোর জন্য। তৃণমূল কংগ্রেসের এটা সামাজিক দায়বদ্ধতা। আপনারা এসেছেন ধন্য করেছেন। দায় পূরণ করার সুযোগ করেছেন। তৃণমূলের কিছু মানুষ চুরি করেছে। ভালো কাজ ও করেছেন। মন্দ কাজ যারা করেছেন তারা শাস্তি পাবেন। রক্তদান বস্ত্রদান অন্নদান তৃণমূলের মতো কেউ করে না। আর কেউ করবে না। ডেঙ্গি আটকাতে মশারি দিচ্ছে। ধন্যবাদ জানানোর ভাষা নেই। লেনিনগড় সজল দাসের মতো পরিশ্রমী সংগঠক কম দেখেছি। পরিশ্রমী হলে হবে না ক্ষমতা আছে। সঙ্গে থাকুন। দুর্গাপুজো খুব ভালো কাটুক সকলের বলেন সাংসদ।

মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বলেন, মানুষ হিসেবে পাশে দাঁড়িয়ে সাধ্যমতো সমাজের কাজ করতে হবে। কেউ অভুক্ত থাকলে তার খাবার আবার কাউকে হাসপাতালে পৌঁছে দিতে হলে। প্রতিবেশী দের সুখ দুঃখ ক্ষমতা যতটুকু কাজ করতে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মেয়েদের স্বনির্ভর করে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন। কন্যাশ্রী রুপশ্রী আনন্দধারা সেল্ফ হেল্প গ্রুপ করে। একশো দিনের কাজ। মহিলাদের পঞ্চাশ শতাংশ আসন সংরক্ষণ। মহিলাদের সমান অধিকার পৌঁছে দেওয়া চেষ্টা করে চলেছেন। ভারতবর্ষ এক নম্বর জায়গায়। যারা চুরি করেছেন ধরা পরেছেন কোর্ট থেকে নিঃশ্বার্থ ভাবে ছাড়া পেয়ে আসতে হবে। দল তাকে গ্রহন করবে না বলেন মন্ত্রী।

শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে বলেন বিরোধী দলনেতা কোর্টে গিয়ে প্রমাণ করে আসুন। তিনি নির্দোষ। তাকে হাতে টাকা নিতে দেখা গিয়েছে। বিজেপি মন্ত্রী হেমন্ত বিশ্ব শর্মা অর্থনৈতিক দুর্নীতির অভিযোগ আছে। তার বাড়ি ইডি সিবিআই যাচ্ছে না কেন? অন্যান্যদের মধ্যে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি কৃষ্ণ গোপাল বন্দ্যোপাধ্যায়, নববারাকপুর পুরসভার পুরপ্রধান প্রবীর সাহা, খড়দহ পুরসভার পুরপ্রধান নিলু সরকার, খড়দহ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি সুকুরালি পুরকাইত, বিলকান্দা ১ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান চিত্তরঞ্জন মন্ডল, উপপ্রধান মলিনা রানী মল্লিক সহ বিলকান্দা ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৮ জন পঞ্চায়েত সদস্য।