অলোক আচার্য, কলকাতা :- যাযাবরের শব্দ সন্ধান। সাহিত্যের মুক্ত আকাশে উড়ে বেড়ানো একঝাঁক উজ্জ্বল সপ্রতিভ তরুণ সাহিত্য পিপাসু মন নিয়ে জীবনের আপাত সাধারন ঘটনার ভিতর দিয়ে পথ চলতে চলতে শব্দ বর্নমালাকে খুজে পায় যাযাবর। সোস্যাল মিডিয়ার যুগে যাযাবরদের আলাপচারিতা মোবাইল ফোনে। কেউ থাকে সুদুর ব্যাঙ্গালোর কেউ বা বাংলাদেশ আবার কেউ কলকাতার বেলেঘাটা,কল্যানী কেউ আবার দক্ষিন ২৪ পরগনা জেলার সুভাষগ্রাম আবার বীরভূমে। কলমেই সাহিত্য পিপাসুদের বিচ্ছুরণ। কলম কথা বলে সমাজের,পরিবারের,দলতন্ত্রের। হতিয়ার কলম।
বর্তমান সময় ও জীবনের নিজের মনন দৃষ্টি দিয়ে শব্দ সন্ধান করে বতর্মান উদীয়মান নয় লেখক ‘ খোলাখাম ‘ গ্রন্থে। গ্রন্থের ভূমিকায় সাহিত্যিক ষষ্ঠীপদ চট্টোপাধ্যায় লিখেছেন খোলাখাম’ গ্রন্থ মুক্ত নীল আকাশের সেই এক ঝাঁক পাখির কলকাকলি,জীবনকে যারা দেখতে ও দেখাতে চায় ঠিক সেই রুপে- যে রুপে জীবন প্রবহমান। আগুয়ান এই নবীন প্রতিভাদের হাত ধরে দেখলাম আজকের জীবন,সমাজ ও সময়কে;বিস্মিত সাধুবাদ জানাই তাদের জীবনের গল্প বলার গতিশীল প্রয়াসকে। গ্রন্থ টি উৎসর্গ করা হয়েছে বাংলা ভাষাপ্রেমী সকল গল্প পাঠকের উদ্দেশ্যে। সম্পাদক মৌলি বণিক সম্পাদকীয়তে লিখেছেন এই নয় নবীন প্রতিভার দৃষ্টির সার্চলাইটের আলোয় পাঠক এই সময় ও সমাজকে দেখতো পাবেন ‘ খোলাখাম’ এর প্রতিটি গল্প অবয়বে। তার অক্ষরলিপি কোন কল্পকথা নয়,জীবনবোধজাত সমকাল দর্শন,কখনো আঞ্চলিক ভাষায় আত্মকথন,কখনো চরম বাস্তবমুখী জীবনের টানা পোড়েন ও উত্তরণের পথে চলা। ২০অক্টোবর কলকাতা কৃষ্ণপদ ঘোষ মেমোরিয়াল হলে খোলাখাম’ গল্প সংকলন গ্রন্থের মোড়কের আবরণ উন্মোচন করলেন সাহিত্যিক সৈয়দ হাসমত জালাল,বাংলাদেশের প্রথতিযশা কবি অমিতাভ মীর ও গল্পকার মানস সরকার। সৈয়দ হাসমত জালাল বলেন বাংলা ভাষা বিপন্ন হয়ে পড়েছে। বহু নামিদামী বাঙালির বাংলা ভাষা সংস্কৃতি সম্পর্কে অনুভূতি নেই। ভাষাকে প্রকৃত ভালোবাসুন। সাহিত্যকে বাচাঁন। হাতে একটা বই পেলেও বই পড়ার অভ্যাস কমে গেছে। মনোসংযোগের অভাব রয়েছে। পুরনো গল্পের বই বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে অনস্বীকার্য। সাহিত্য পাঠের মধ্যে দিয়ে বহু ভাবনা চিন্তাকে সমৃদ্ধ করে মজবুত করেছেন শুভ মানবিক মুল্যবোধকে। কবি অমিতাভ মীর বলেন নিজস্ব বর্নমালা দিয়ে হারিয়ে যাওয়া নিজস্ব সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য খুজে পাওয়া যাবে এই যাযাবরের শব্দ সন্ধানেতে। প্রত্যাশা বাংলা ভাষাকে বাচিয়ে রাখতে এরকম দু চারটে গ্রন্থ প্রকাশ হবে এপার বাংলা ওপার বাংলার সাহিত্যপ্রেমীদের গল্পকে বাচিয়ে সমৃদ্ধশালী করবে শব্দ সন্ধান।তরুণ উদীয়মান সংগীত শিল্পী অনিন্দিতা মন্ডলের সুরেলা কন্ঠে সংগীত ছিল বেশ সাবলীল। কবিতা পাঠ করেন স্বর্নলতা মন্ডল,সুধাংশু বিকাশ সাহা,। উপস্থিত ছিলেন লেখিকা পৃথা শ্যাম,মৌমিতা গড়াই,পায়েল খাঁড়া,সৌমী শাখারী,মৃত্তিকানাথ মুখোপাধ্যায় সহ বহু বিশিষ্ট জনেরা। প্রদীপ প্রজ্বলনের পর মঞ্চে উপস্হিত অতিথিদের উত্তরীয় পুষ্পস্তবক ও কলম স্মারক সন্মানে সন্মানিত করেন সম্পাদক বাচিক শিল্পী মৌলি বণিক ও সত্যরজ্ঞন বণিক। অনুষ্ঠান সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন পত্রিকার সহ সম্পাদিকা বাচিক শিল্পী চম্পা সর্দার।