অলোক আচার্য, নিউ বারাকপুরঃ- কোন ব্যবসায়ীক অসাধু উদ্দেশ্য নয় সরকারি ধার্যে ন্যার্যমূল্যে জনসাধারণের পরিষেবায় সামাজিক সংগঠনের ঐকান্তিক উদ্যোগে রবিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় নিউ বারাকপুর দক্ষিণ মাসুন্দা পল্লী মঙ্গল সমিতির প্রাঙ্গণে উদ্বোধন হল একটি অ্যাম্বুলেন্স ও শববাহী যান পরিষেবার। আফটার টেন সামাজিক সংগঠনের ঐকান্তিক নিজস্ব উদ্যোগে। আফটার টেন পথ চলা শুরু ২০২০ সালের ১৬ এপ্রিল কমিউনিটি কিচেন উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে। প্রায় দেড় বছর করোনা অতিমারির সময় বিনা পয়সায় ঘরে ঘরে পৌছে গেল প্যাকেট করা খাবার, রক্তের সংকট মোচনে রক্তদান শিবির, অক্সিজেন ঘাটতি পূরণে অক্সিজেন পরিষেবা। ছেলে মেয়েদের পড়াশোনার শিক্ষণ সামগ্রী।

পাশাপাশি আম্ফান ও ইয়াসের ঘূর্ণিঝড়ে সুন্দরবন অঞ্চলে দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ত্রাণ সামগ্রী পৌছে দেওয়া । সংস্থার এই পথ চলায়। মানুষের পাশে। মানুষের সাথে দাঁড়িয়ে আরো বেশি করে পরিষেবা পৌঁছে দিতে ইচ্ছা ছিল জনসাধারণের জন্য একটি অ্যাম্বুলেন্স ও শববাহী যান পরিষেবার। বাস্তবায়িত প্রকল্প। বহু মানুষ দু হাত ভরে সাহায্য করলেন। কেউ পাচশ। কেউ দু হাজার আবার কেউ পাচঁ হাজার সহায়তা করল। কোন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট নয়। শীততাপ নিয়ন্ত্রিত রণেন্দ্র নাথ বসুর স্মৃতির উদ্দেশ্যে অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা যানের শুভ উদ্বোধন করেন সমাজকর্মী ফুল বসু। রণেন্দ্র নাথ বসু স্মৃতি সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয় ফুল বসু কে।শেষের খেয়া শববাহী যানে উদ্বোধন করেন সমাজকর্মী সুচেতা দত্ত। উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ পংকজ কুমার অধিকারী, ডাঃ সুদীপ্ত মুখার্জি, সংগঠক শান্তনু সেন, শেখর মিত্র, সজল সরকার প্রমুখ।

সংঘের সম্পাদক অবিন দত্ত জানান, ১০ জন বন্ধু মিলে আড্ডার ছলে Whatsapp গ্রুপের নাম আফটার টেন। দেড় বছরের সামাজিক সংগঠন। পরিকল্পনা ছিল অ্যাম্বুলেন্স ও শববাহী যান পরিষেবার উদ্বোধনের।জনসাধারণের জন্য এই শববাহী যান ও অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা উদ্বোধন হল বহু মানুষের সহায়তায় ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রবল আন্তরিকতায়।

পাশাপাশি হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী কবিতা পরিবেশন করেন শিশু শিল্পী সুহৃদ রাহা। সংগীত শিল্পী চৈতি পর্নার একক সুরেলা কন্ঠে বেশ কিছু জনপ্রিয় গান দর্শকদের মোহিত করে এদিন। উত্তর দরিয়া বাংলা ব্যান্ড লোকসংগীত অন্য মাত্রা এনে দেয়। জয়শ্রী, কৌশিক ও অনামিকা র কন্ঠ দর্শকদের হাত তালি কুড়িয়ে নেয়। নিউ বারাকপুরের বুকে সর্বপ্রথম আফটার টেন সামাজিক সংগঠনের নিজস্ব উদ্যোগে এই মানবিক উদ্যোগ। নজির স্থাপন করেছে আফটার টেন সামাজিক সংগঠনের সদস্যরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন সংস্থার সদস্য অভিজিৎ দে ।