সংবাদদাতা, হাবড়াঃ- মাতৃদিবসে করোনায় মৃতা মায়ের দেহ আগলে শেষযাত্রায় নিয়ে গেলেন কন্যা। এমনই ঘটনা ঘটেছে উত্তর চব্বিশ পরগণার হাবড়াতে। পাশে দাঁড়ানোর মুখ নেই, প্রশাসন বধির আর তাঁর মধ্যে মাতৃ দিবসে করোনায় বিনা চিকিৎসায় মৃত মায়ের দেহ আগলে নির্বান্ধব সমাজে কার্যত মাকে একাই অভাগীর স্বর্গ দর্শন করলেন কন্যা আশালতা মন্ডল।

হাসপাতালে বেড নেই, চিকিৎসা নেই মানুষের, পরে পরে মরছে মানুষ। করোনা অতিমারীর ভয়াবহ আক্রমণ ও রোগীর সংখ্যাধিক্য ঘটায় স্বাস্থ্য ব্যবস্থা রসাতলে। করোনাতে দেহ বাড়িতে পরে থাকছে। হাবড়াতেও বছর একষট্টির স্মৃতি গাইনের মৃত্যু হল বিনা চিকিৎসায়। আর রবিবার মাতৃদিবসে সবাই যখন বিভিন্ন সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে মায়ের ছবি পোষ্টে মগ্ন, স্মৃতি গাইনের মেয়ে আশালতা মন্ডল তখন দিনভর মায়ের দেহ আগলে খুঁজে বেড়ালেন মানবিক হাত।

তিনি দেখলেন নেই কোনো মানবিক হাত, নিষ্ক্রিয় প্রশাসন। অবশেষে রবিবার রাতে পরিবারের এক মহিলা সদস্যকে নিয়ে স্থানীয় রাজনৈতিক প্রতিনিধির পাঠানো দুটি পিপিই কীট পরিধান করে মাতৃদিবসে শেষ যাত্রায় মাকে রওয়ানা করে মাতৃ দিবসে মাতৃ অর্ঘ্য দিলেন উত্তর ২৪ পরগণার হাবড়ার আশালতা মন্ডল।

করোনা মানুষকে মরছে প্রাণে, মৃত্যু হচ্ছে মনুষ্যত্বের। সবমিলিয়ে অমানবিক চিত্রই আবার ধরা পরল হাবরা থানার বেলের মাঠ এলাকায়। বৃদ্ধার মৃত্যুর পরে অবশেষে যে ভাবে মৃতের পরিবার নিজেই পিপিই কিট পরে নিয়ে যায় শ্মশান এর উদ্দেশ্যে তাতে তারই প্রমান মিলল ।

করোনায় মৃত্যুর পর মৃতদেহ ঝড় বর্ষায় বাইরেই পড়ে রইল সাহায্যে এগিয়ে এলো না প্রশাসন, সাধারণ মানুষ তো আসবেন সে আশা বাতুলতা । রবিবার সকাল সাতটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত বাড়িতেই মায়ের মৃতদেহ আগলে বসে ছিলেন উত্তর ২৪ পরগনা জেলার হাবরা থানা এলাকার বাসিন্দা আশালতা মন্ডল।

পরিবারের পুরুষ সদস্যরা কাজের জন্য ভিন রাজ্যে থাকেন। আশা লতা দেবি জানান, সাত দিন ধরে জ্বর ছিল ৬ তারিখে করোনা পরীক্ষা করানোর পর ৮ তারিখে রেজাল্ট আসে করোনা পজিটিভ। বাড়িতেই চিকিৎসা চলছিল ওই বৃদ্ধ মহিলার।

রবিবার সকাল সাতটায় মারা যান বৃদ্ধা মহিলা। কিন্তু মৃত্যুর 12 ঘণ্টা পার হলেও না কোন সরকারি সাহায্য না স্থানীয় বাসিন্দাদের সাহায্য পেয়েছেন। ঝড় বৃষ্টির মধ্যেই বাড়ির উঠোনে পড়ে থাকতে দেখা যায় মৃতদেহ। স্থানীয় প্রশাসন কে বারবার খবর দিলেও সাহায্য পাননি এমনই অভিযোগ। স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত মেম্বার দুটি পিপিই কিট দিয়ে চলে যান।

অবশেষে শবদেহ বাহি গাড়ি এলে বাড়ির দুই মহিলা পিপিই কিট পরে গাড়িতে তোলেন মৃতদেহ। করোনা আবহে ক্রমেই অমানবিক পরিমন্ডলে আশালতা মন্ডলের মাতৃ দিবস উদযাপনের পরিসমাপ্তি ঘটল এভাবেই ।