নিজস্ব সংবাদদাতা, উত্তর ২৪ পরগণা :- বৃহস্পতিবার বোমা-গুলির লড়াইয়ে উত্তপ্ত উত্তর ২৪ পরগনা জেলার ভাটপাড়া থানার কাঁকিনাড়া। জানা গিয়েছে, দুই দলের সংঘর্ষে মৃত্যু হল দু’জনের। মৃতদের নাম রামবাবু সাউ ও সন্তোষ সাউ। জখম হয়েছেন আরো তিনজনজানা গিয়েছে, এদিন সকালে ভাটপাড়ার নবগঠিত থানার থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে দুই দুষ্কৃতী দলের মধ্যে অশান্তি শুরু হয়। এলোপাথাড়ি গুলি ও বোমাবাজি চলে। পরিস্থিতি সামাল দিতে শূন্যে ১০ রাউন্ড গুলি চালায় পুলিশ। বর্তমানে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া গেলেও এলাকা কার্যত বনধের চেহারা নিয়েছে। ভাটপাড়ার পরিস্থিতি নিয়ে নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ভাটপাড়া এলাকার জনজীবন স্বাভাবিক করার নির্দেশ দিয়েছেন। অবিলম্বে অপরাধীদের গ্রেপ্তার করার নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশকে। এরপরই বিকেলেই সরিয়ে দেওয়া হয় ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের কমিশনার তন্ময় রায়চৌধুরীকে। তাঁর জায়গায় মনোজ বর্মাকে ব্যারাকপুরের পুলিশ কমিশনার করা হয়। তিনি ছিলেন দার্জিলিং -এর আইজি পদে।এমনকি এদিন ভাটপাড়া থানার উদ্বোধনের জন্যে বেরিয়ে পরেছিলেন রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র। কিন্তু মাঝ রাস্তা থেকে ফিরে নবান্নে বৈঠকে বসতে হয় ডিজিকে। পরে নবান্ন থেকে বেরিয়ে সোজা চলে আসেন ভাটপাড়া থানায়। সেখানে কমিশনারেটের সমস্ত আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ডিজি। মুখ্যমন্ত্রীর কড়া নির্দেশের পরই শুরু হয়েছে পুলিসি টহল। এরপরেই ওই এলাকায় জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা। ভাটপাড়ার ঘটনায় ইতিমধ্যেই ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদেরকে এলাকা থেকে তুলে ভাটপাড়া থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়াও আজ মধ্য রাত থেকে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।