সানওয়ার হোসেন :- ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। সাগরদ্বীপের প্রায় কুড়ি কিলোমিটার দক্ষিণ দিক দিয়ে কোণাকুণি বাংলাদেশ অভিমুখে যাত্রা করছে। তাই এবারও সাগরদ্বীপ অল্পের জন্য রক্ষা পেল খুব বড় রকমের ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে। কিছু কাঁচা বাড়ি, পানের বরজ, গাছ ও কৃষিজমি নষ্ঠ হয়েছে। এখনও আতঙ্কিত বহু মানুষ, বিভিন্ন ত্রাণ শিবিরে আশ্রয়ে আছেন। গত কাল থেকে সুন্দরবন পুলিশ জেলার এস.পি, এস.ডি.পি.ও এবং সাগর, পাথর, কাকদ্বীপ, ফ্রেজার গঞ্জ থানার ও বিপর্জয় মোকাবিলার বাহিনী যথেষ্ট তৎপর রয়েছে। জেলা শাসক ও জেলা সভাধিপতি বুলবুল পরিদর্শনে আসেন।

নবান্ন সূত্রে, বিপর্যস্ত হয়েছে পূর্ব মেদিনীপুরের বেশ কিছু অংশও। রাজ্যে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সরজমিনে পরীক্ষা করা হবে ড্রোন ‘দুর্দান্ত’-র মাধ্যমে।

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বুলবুলের প্রভাব কেটে যাওয়ার পরেও যাদের ফিরে যাওয়ার সমস্যা থাকবে, তাঁরা ত্রাণ শিবিরে থাকতে পারবেন। তার পরে তাঁদের পুনর্বাসনের উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবো।
কাল রাতে কলকাতায় ঝোড়ো হাওয়ার গতি কম ছিল কিন্তু আজ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে।
বক্ষালি ও ঝড়খালিতে তুমুল বৃষ্টি, ঝোড়ো হাওয়া বইছে। এ রাজ্যের উপকূলে ঢুকে এখনও কিছুটা অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ফ্রেজারগঞ্জ-সাগরদ্বীপ হয়ে ক্রমশই এ রাজ্যের স্থলভাগে ঢুকে পড়ছে। আগামী ২ ঘণ্টায় বৃষ্টি আরও বাড়তে পারে উপকূলে।
কলকাতা, হুগলি, নদিয়া, পূর্ব মেদিনীপুর, দুই ২৪ পরগনায়ে বৃষ্টি চলবে আগামী ২৪ ঘণ্টা। রবিবার দুপুরের মধ্যে বুলবুলের শক্তিক্ষয় হবে বলে জানা যায় আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে।
পশ্চিমবঙ্গের পর বাংলাদেশ হয়ে ত্রিপুরার দিকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বুলবুলের।
ট্রেন লাইনে গাছ পড়ে বাতিল হয়েছে শিয়ালদহ-নামখানা লোকাল। ধিরে ধিরে দক্ষিণ শাখার ট্রেন চলাচল ও সাগরে ভ্যাসেল চলাচল স্বাভাবিক হচ্ছে।

অন্যদিকে বুলবুল নিয়ে নবান্নের কন্ট্রোল রুমে সাংবাদিক বৈঠক করে মুখ্যমন্ত্রী জানান, এ পর্যন্ত উপকূলবর্তী এলাকা থেকে ১ লক্ষ ৬৪ হাজার ৩১৫ জনকে সরানো হয়েছে নিরাপদ স্থানে। তাঁদের মধ্যে ১ লক্ষ ১২ হাজার ৩৬৫ জন আশ্রয় নিয়েছেন ত্রাণ শিবিরে। ২১৫ টি রান্নাঘরের ব্যবস্থা করা হয়েছে রাজ্য জুড়ে। ত্রাণ শিবির গুলিতে মজুত করা হয়েছে পরিস্রুত পানীয় জলের প্রায় ২ লক্ষ ৪০ হাজার পাউচ।

নবান্ন থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং পুরসভার কন্ট্রোল রুমে ফিরহাদ হাকিম পুরো বিষয়টা তদারকি করছেন।