অলোক আচার্য, বিরাটীঃ- ২১ জুলাইয়ের রাতে বিরাটীতে গুলিবিদ্ধ হয়ে খুন তৃণমূল কর্মী। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে বিরাটী বণিক মোড়ে। নিহত তৃণমূল কর্মীর নাম শুভ্রজিৎ দত্ত ওরফে পিকুন (৩৮)। জানা গিয়েছে, রাত সাড়ে দশটা নাগাদ পার্টি অফিস থেকে বেরিয়ে বাড়ি ফেরার সময় গুলিবিদ্ধ হন তিনি। তৃণমূল কর্মী খুনের ঘটনায় বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। বিজেপির দাবি, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলে খুন।

স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, বাইক করে এসে তৃণমূল কর্মীর মাথায় ও বুক গুলি করে দুষ্কৃতীরা।
সূত্রের খবর, এলাকায় করোনা ভ্যাকসিন সংক্রান্ত কাজ চলছিল উত্তর দমদম পুরসভার ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কার্যালয়। সেই সমস্ত কাজ শেষ করে বাড়ি ফিরছিলেন শুভ্রজিৎ দত্ত। তখনই দুষ্কৃতীরা বাইক করে এসে তাকে গুলি তাকে ঘিরে ধরে এবং খুব কাছ থেকে তাকে লক্ষ্য করে ৫ রাউন্ড গুলি চালায়। এই ঘটনায় ব্যপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। গুলি চালানোর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে নিমতা থানার পুলিশ। সেই সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় ব্যারাকপুর ও বিধান নগর পুলিশ কমিশনারেট পুলিশ বাহিনী ও। রক্তাক্ত অবস্থায় তৃণমূল কর্মীকে উদ্ধার করে উত্তর দমদম পুরসভার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে চিকিৎসকেরা।

স্থানীয় তৃণমূল সভাপতি বিধান বিশ্বাস জানান, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এলাকাকে অশান্ত করতে এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এই ঘটনায় বিজেপি নেত্রী অর্চনা মজুমদার দাবি, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারনেই খুন। তিনি বলেন, গতকাল রাতে বিরাটী যে শুটআউটের ঘটনা ঘটেছে অত্যন্ত দূর্ভাগ্যজনক হতাশাজনক। আমি ব্যক্তিগত অত্যন্ত নিন্দা করি। এবং মৃত্যুর জন্য শোক প্রকাশ করি।

তৃণমূল কর্মী খুনের ঘটনায় আজ বিরাটী বনিক মোড়ে সেই ঘটনাস্থলে এলেন ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনার মনোজ ভার্মা। ঘটনাস্থল ঘুরে দেখেন, তদন্ত স্বার্থে কিছু বলতে না চাইলেও এই খুনের ঘটনায় কিছু তথ্য এসেছে পুলিশের কাছে,তা তদন্ত করে দেখছে। শুভ্রজিৎ ওরফে পিকুন, তৃণমূল কর্মী বলে পরিচিত,তার শরিরে ৫টি গুলি আছে বলে পুলিশে সূত্রে খবর, ময়নাতদন্তের পর বাদবাকি তথ্য উঠে আসবে বলে জানান পুলিশ কমিশনার। এই ঘটনা সাথে কোন রাজনৈতিক যোগসূত্র আছে কিনা বা ব্যবসায়ীক কোন শত্রুতার জেরে এই খুন তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানান। ইতিমধ্যে ২জন কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চালাচ্ছে পুলিশ। অন্যদিকে মৃত তৃণমূল কর্মীর পরিবার থেকে বাবুলাল নামে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে।

সূত্র মারফত জানা যায়, গতকাল তাকেও মারধর করা হয়।ফলে গোটা ঘটনা নিয়ে রহস্য দানা বাঁধছে। তদন্ত হলে বোঝা যাবে এই খুনের পিছনে আসলে কি রহস্য আছে।