অলোক আচার্য, কলকাতাঃ- বাংলা চলচ্চিত্রে আবার নক্ষত্র পতন ঘটল, বৃহস্পতিবার দিন ভোরে নিজের বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন বিশিষ্ট পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৭বছর। বৃহস্পতিবার দিন ভোর ছটা নাগাদ ঘুমের মধ্যেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বিশিষ্ট পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত।

তাঁর প্রয়াণে টলিউড জগতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। অনেকেই বলেছেন বাংলা চলচ্চিত্রের জগতের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল যা কোনদিনও পূরণ করা সম্ভব হবে না। বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত শুধু পরিচালক ছিলেন না তার সঙ্গে ছিলেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক এবং কবি। তিনি একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পরিচালক ছিলেন।

বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের ৫০ বছরের পুরনো বন্ধু বিশিষ্ট পরিচালক গৌতম ঘোষ জানিয়েছেন, বাংলা চলচ্চিত্র শিল্পে যে অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল তা কোনোদিনও পূরণ করা সম্ভব হবে না। গৌতম ঘোষ আরো বলেছেন, ৫০ বছরের পুরনো বন্ধুকে হারিয়ে তিনি মর্মাহত, কত পুরনো স্মৃতি জড়িয়ে আছে যা কোনদিনও ভোলা সম্ভব নয়।

শোকজ্ঞাপন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তিনি সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন যে, বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। তিনি আজ কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। তিনি আজ
কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। তাঁর পরিচালিত উল্লেখযোগ্য ছবি তাহাদের কথা, বাঘ বাহাদুর, উত্তরা, চরাচর, মন্দ মেয়ের উপাখ্যান, কালপুরুষ ইত্যাদি।

বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত স্পেন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড, এথেন্স আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে গোল্ডেন অ্যাওয়ার্ড, বার্লিন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে গোল্ডেন বিয়ার পুরস্কার, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার সহ অজস্র সম্মানে ভূষিত হয়েছেন। তাঁর মৃত্যুতে চলচ্চিত্র জগতের অপূরণীয় ক্ষতি হল। আমি বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের পরিবার-পরিজন ও অনুরাগীদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।