নিজস্ব সংবাদদাতা, বসিরহাট :- আজ বুধবার ১২ জন কাউন্সিলার তাদের অনাস্থা দেওয়া লিখিত কাগজ প্রত্যাহার করবে ।দলের অনুমোদন ছাড়াই নিজেরা দলের বিরুদ্ধে গিয়ে অনাস্থা এই ছিল পৌরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। রাজ্য নেতৃত্ব অনুমোদন দিল না। এই নিয়ে বসিরহাট পৌরসভায় রাজনৈতিক উত্তেজনা তৈরী হয় ।হঠাৎই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১২ জন তৃণমূল কাউন্সিলর অনাস্থা আনেন। ঠিকমতো কাজ সম্ভব হচ্ছে না চেয়ারম্যান সহযোগিতা করছে না। কিন্তু দলের কোন অনুমতি ছাড়াই তারাই সিদ্ধান্ত নেয়। দল সম্মতি দিলো না গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যেবেলা পুর নগরায়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের দপ্তরের বসিরহাট পৌরসভার চেয়ারম্যান ভাইস চেয়ারম্যানসহ ১৬ জন কাউন্সিলার হাজির হন সেখানে রীতিমত লিখিতভাবে দেন ।এই কাউন্সিলররা যাতে কোনদিন দলের সম্মতি ছাড়া ও অনাস্থা আনতে পারবেন না। এমন কি দল বিরোধী কাজ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

বুধবার চেয়ারম্যান ইEO.S.D.O DM কাছে দেওয়া লিখিত অবস্থা পেপার সেগুলো তুলে দেবে। এই নিয়ে বসিরহাট জুড়ে রাজনৈতিক গুঞ্জন শুরু হয়েছিল। বসিরহাট পৌরসভার চেয়ারম্যান তপন সরকারের স্বচ্ছ ভাবমূর্তি সারা বছর মানুষের পাশে থেকে তাদের অভাব অভিযোগ শোনা। এবং বসিরহাট পৌরসভাকে উন্নয়নমুখী তুলতে বড় ভূমিকা নিয়েছিল। বলছেন বসিরহাটের মানুষ। সেটা জানতো এই অনাস্থা দেয় রীতিমত বসিরহাট শহরের মানুষ এইটা ভালো চোখে ন্যায় নি। এর কাউন্সিলরদের ভূমিকা নিয়ে চার দোকান থেকে শুরু করে রাস্তা পথ চলতি মানুষ এমনকি বিরোধীদলের কাউন্সিলার দের মুখে তপন সরকারের উন্নয়নমুখী কাজে ও স্বচ্ছতা প্রশংসা শোনা গেছে। তার বিরুদ্ধে অনাস্থা এনে যে কাউন্সিলররা পৌরসভার উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করার জন্য পরিকল্পনা করেছিল ।সেটা অবশেষে ভেস্তে গেল দল অনুমোদন দিল না। বসিরহাট পৌরসভার তৃণমূল কংগ্রেসের চেয়ারম্যান তপন সরকারের অপসারণের দাবিতে তৃণমূলের ১২ জন কাউন্সিলর অনাস্থা আনেন সোমবার দিন। পৌরসভার E.O.SDO.DM অফিসারের কাছে অনাস্থা জমা দিলেন চেয়ারম্যান অপসারণের দাবিতে বসিরহাট পৌরসভায় মোট ২৩ জন তার মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের ১৬ জন মধ্য ১২ জন দিয়েছিল সোমবার দিন চেয়ারম্যান তপন সরকার বলেন আমি একজন দলের সৈনিক। দল যা সিদ্ধান্ত নেবেন আমি তা মাথা পেতে নেবো।