সংবাদদাতা, বারাসত :- “পচা আলুতেই আলুরদমের স্বাদ বাড়ে। ভোটের আগে অনেকে বলেছিল পচা আলুকে সরিয়ে রাখতে হয়। আমার মনে হয়েছি, আমি সেই পচা আলু। ফলাফল বলে দিচ্ছে পচা আলু তে স্বাদ বাড়ে।আর টাটকা আলু হরকে গেল”। নাম না করেই সুজিত বসুকে কটাক্ষ সব্যসাচী দত্তর।যিনি নিজের ওয়ার্ডে জিততে পারেন না, উনি আবার বারাসাত লোকসভার কান্ডারি ছিলেন।আমি যেখানে থাকি সেই বিধান নগরে হেরেছে দল,।আর ওনার দায়িত্ব বাড়ছে,এটাই বাংলার ট্রেন্ড।আগামী দিনে উনি অল ইন্ডিয়ার লিডার হবেন,সংযোজন সব্যসাচীর।রাজ্যে বিজেপির ভোট বাড়া নিয়ে সব্যসাচীর মত এটা মানুষের ভোট মানুষের রায়। শুধুমাত্র সাইরেন বাজিয়ে ঘুরে বেড়ালেই হয় না-দলের নেতাদের বিরুদ্ধে বিধাননগরের মেয়রের কটাক্ষ ।এর পরই তৃনমূল নেতা সব্যসাচী দত্ত বলতে থাকেন ২০১১ সালে পরিবর্তনের হোর্ডিং এ যারা ছিলেন তাদের এক করার চেষ্টা করছি।নব গঠিত “নবজাগরণ” তৈরী করে।সম্প্রতি তার অথিতেওতা তেই বিধান নগরের নবজাগরণ মঞ্চের প্রস্তুতি বৈঠক হয়েছে।সেকথাও তিনি এই দিন স্বীকার করে নিয়েই বিধান নগরের মেয়রের দাবি,এই মঞ্চ রাজ্যের অবহেলিত,নির্যাতিত,পুলিশের দ্বারা আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়াবে।আজ বারাসাত আদালতে বাম আমলের একটি মামলায় হাজিরা দিতে এসে ক্ষোভ উগরে দেন বিধান নগরের মেয়র।