নিজস্ব সংবাদদাতা, নিউ বারাকপুরঃ- করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে বিপর্যস্ত গোটা দেশ। এই পরিস্থিতিতে মানুষ কে বাঁচাতে নিতে হবে টিকা। বাড়ছে সংক্রমণ। ভ্যাকসিন নিয়ে সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারকে কাঠগোড়ায় তুলেছে রাজ্য সরকার। রাজ্য সরকার নিজস্ব আর্থিক খরচে টিকা কিনে বিনামূল্যে রাজ্যের মানুষকে দেওয়ার জন্য কেন্দ্রের কাছে চাইলে ও তার সরবরাহ অপ্রতুল।ঠিক সেই সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাজ্য সরকারের কিনে দেওয়া ভ্যাকসিন পেয়ে খুশি নিউ বারাকপুর পুরসভার হকার বাস টোটো অটো রিকশা ও ভ্যান চালক ও সাংবাদিকরা।

নিউ বারাকপুর পুরসভার উদ্যোগে হকার, গণ পরিবহন চালক এবং সাংবাদিকদের করোনার প্রথম ডোজ দেওয়া হল বৃহস্পতিবার সকালে কৃষ্টি প্রেক্ষাগৃহে। ১৮ থেকে ৪৪ বছর এবং ৪৫ উদ্ধে বয়স পর্যন্ত দুই শতাধিক মানুষদের কোভিশিল্ড প্রথম ডোজ দেওয়া হয়। পুরসভার স্বাস্থ্য কর্মীরা এই কাজের দায়িত্বে ছিলেন। গত শনিবার থেকে হকারদের টিকাকরণ কর্মসূচি চালু হয়ে ছিল। টিকা ঠিকমতো দেওয়া হচ্ছে কিনা, উপস্থিত থেকে তা তদারকি করেন পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য প্রবীর সাহা, এনইউএলএম সিস্টেম ম্যানেজার ড. তপন কুমার জানা, পুরসভার নোডাল অফিসার দেব প্রসাদ রাহা।

পুর প্রশাসক বলেন, দুভাগে টিকা দেওয়া হচ্ছে। ১৮-৪৪ এবং এরপরে ৪৫ উদ্ধে থেকে ৭০ বছর বয়স্কদের দেওয়া হল এদিন ধারাবাহিক ভাবে চলবে। উপস্থিত হকার ভাই বোনেরা গণপরিবহনের চালক কর্মীরা শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে সকলেই মাস্ক পরে স্যানিটাইজার করে টিকাকরণ করেন। টিকা দেওয়ার পরে স্বাস্থ্য কর্মীরা মানুষদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সচেতন করছেন।ভ্যাকসিন দেওয়ার পর আধ ঘন্টার মতো পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। নব বারাকপুর পুরসভার এহেন উদ্যোগে কে সাধুবাদ জানান এবং টিকা গ্রহণকারীরা খুশি দ্রুত পরিষেবা পাওয়ায়।