অলোক আচার্য, নিউ বারাকপুরঃ- একদিকে চিকিৎসক আবার জনপ্রতিনিধি। দিনরাত মানুষদের পরিষেবা দিচ্ছেন। করোনা অতিমারি আবহের মধ্যে ও প্রচুর কোভিড পজিটিভ রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করেছেন। মানুষের বিপদে তাকে এক অভিন্ন নির্ভীক চরিত্রের মানুষ হিসাবে দেখতে পাওয়া গেছে। নিরলস মানবসেবার মধ্যে দিয়ে তিনি নিজেকে প্রমান করেছেন মানুষ মানুষের জন্য। বিশ্বব্যাপী করোনা আবহের মধ্যে ও চিকিৎসা দাড়িয়েছেন। বহু মানুষ তাঁর কাছে উপকৃত। দুঃস্থদের ও নিখরচায় চিকিৎসা পরিষেবা দিয়ে চলেছেন। তিনি নব বারাকপুর নিবাসী ডাঃ পংকজ কুমার অধিকারী।নিউ বারাকপুর পুরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের কোঅর্ডিনেটর ও।

করোনা অতিমারি ও রাজ্যের বিধিনিষেধে বহু মানুষ গৃহবন্দী। কলকারখানা ও অফিস বন্ধ। নেই অর্থ। নেই খাবার। সেইসব প্রান্তিক নিরন্ন মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে নিউ বারাকপুরে ৮,৯,১০,১১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কর্মহীন দিন আনা দিন খাওয়া রিক্সা চালক ভ্যান চালক দিনমজুর পরিচারিকা রাজমিস্ত্রীর জোগালিদের মতো অসহায় বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের হাতে খাদ্যসামগ্রী ও প্রয়োজনীয় ওষুধ তুলে দিলেন জনপ্রিয় চিকিৎসক ডাঃ পংকজ কুমার অধিকারী। মঙ্গলবার বিকেলে নিউ বারাকপুর ষ্টেশন সংলগ্ন ডাক্তারবাবুর নিজস্ব সুনির্ভর চেম্বার থেকে।

উপস্থিত ছিলেন পুরসভার মুখ্য প্রশাসক তৃপ্তি মজুমদার, প্রাক্তন পুরপিতা ও সমাজসেবক সুখেন মজুমদার, নিউ বারাকপুর থানার ওসি বিজয় কুমার ঘোষ, এসআই প্রকাশ হাজরা, কলোনী বয়েজ হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ডঃ অনিরুদ্ধ বিশ্বাস, কোঅর্ডিনেটর জযগোপাল ভট্টাচার্য, মনোজ সরকার, সমাজসেবী সুমন দে, অর্চনা অধিকারী, ক্রীড়া সাংবাদিক পূর্ণেন্দু চক্রবর্তী, সমাজসেবী অনির্বাণ চৌধুরী, চিত্রকর দেবাশিস মিএ সহ বিশিষ্ট জনেরা।

ডাঃ পংকজ কুমার অধিকারী জানান, এই করোনা অতিমারি আবহে নিউ বারাকপুর শহরে কর্মহীন কতিপয় অসহায় বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের পাশে দাঁড়িয়ে সাধ্যমতো চাল ডাল আলু সামগ্রী সহ ঔষধ তুলে দেওয়া হয় এদিন। এটা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে। ছেলের স্টাইপেন্ড এর টাকা ও আমার সামান্য প্রয়াসে এই মানবিক উদ্যোগ। প্রায় শতাধিক মানুষের কিছু বেশি প্রান্তিক মানুষের হাতে।