অলোক আচার্য, নিউ বারাকপুরঃ- কোভিড তৃতীয় ঢেউ আসার আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঐকান্তিক অনুপ্রেরণায় রাজ্য জুড়ে চলছে দুয়ারে টিকাকরণ কর্মসূচি। একজন মানুষ ও যেন বাদ না থাকে টিকাকরণ থেকে। লক্ষ্যমাত্রা পূরণে রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের নির্দেশিত পথে নব বারাকপুর শহরে চলছে একশো শতাংশ টিকাকরণ কর্মসূচি। নববারাকপুর শহরে একাশ শতাংশো টিকাকরণ সফল করতে নিউ বারাকপুর পুরসভা দুয়ারে টিকাকরণের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ টিকাকরণের উপর ও জোর দিয়েছে। এমনকি পুর এলাকায় রেল লাইন ধারে বসবাসকারী মানুষদের ও মোবাইল টিকাকরণ ও চালু হয়েছিল। প্রবীণ ও শারীরিক ভাবে অসুস্থ দিব্যাঙ্গদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিকাকরণ দেওয়ার ব্যবস্থা নিয়ে ভাল সাড়া ফেলে দিয়েছে। দুর্গাপুজোর আগে শহরে একশো শতাংশ টিকাকরণ সফল করতে জোরকদমে প্রচার অভিযান ও বিভিন্ন স্কুল কলেজে অনুষ্ঠান ভবনে ও চলছে বিশেষ দুয়ারে টিকাকরণ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চিত্র টা দেখা গেল নববারাকপুর পুরসভার ৬নং ওয়ার্ডের মিনি ইনডোর স্টেডিয়ামে শিবিরে। আশি বছরের বৃদ্ধা কে বাড়ি থেকে নিয়ে শিবিরে এনে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন স্থানীয় কোঅর্ডিনেটর জয়গোপাল ভট্টাচার্য স্বয়ং। বৃদ্ধার হাত ধরে নিয়ে এসে শিবিরে প্রথম ডোজ টিকা দিলেন। বৃদ্ধা খুশি পুর পরিষেবায়।

পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য জয়গোপাল ভট্টাচার্য বলেন, পুরসভা বদ্ধপরিকর শহরে একশ শতাংশ টিকাকরণ সফল করতে। বিভিন্ন ওয়ার্ড ভিত্তিক চলছে বিশেষ দুয়ারে টিকাকরণ কর্মসূচি। মানুষের অভূতপূর্ব সাড়া। ইতিমধ্যেই শহরে নব্বই শতাংশের বেশি মানুষ প্রথম ডোজ টিকা নিয়ে ছেন।যারা এখনও প্রথম ডোজ নেওয়ার বাকি আছে সেই সব নাগরিকরা এসে টিকা দিচ্ছেন বিশেষ ওয়ার্ড ভিত্তিক টিকাকরণ কেন্দ্রে।

প্রিয় শহরকে Fully Vaccinated town বা সম্পূর্ণ টিকগ্রহণকারী শহরে রুপান্তরিত করতে পুরসভার নোডাল অফিসার কোভিড টিমের স্বাস্থ্য কর্মীরা ওয়ার্ডের কোঅর্ডিনেটরা চিকিৎসকরা ডাটা এন্ট্রি অপারেটর টেকনিক্যাল কর্মীরা খুব ভালো কাজ করছেন ওয়ার্ডে। কোভিড স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার সচেতনতার বার্তা ও দেওয়া হচ্ছে। মাস্ক অবশ্যই পরবেন কোভিড প্রোটোকল বিধি মেনে চলাফেরা করবেন।