অলোক আচার্য, নিউ বারাকপুরঃ- জগদ্ধাত্রী। জগৎ জননী চিন্ময়ী মা। করোনার তৃতীয় ঢেউ আসার আগে ভারতবর্ষ থেকে কোভিড মুক্ত করো। সকলের মঙ্গল করো। মায়ের কাছে এই প্রার্থনার পাশাপাশি মানব সেবায় ব্রতী হয়ে দুঃস্থ অসহায় আবাল বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের মুখে কিছুটা হাসি ফোঁটাতে মানব সেবায় এগিয়ে আসে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ও। উপলক্ষ শ্রী শ্রী জগদ্ধাত্রী পুজো। উদ্দেশ্য মানব সেবা। সেবার মনোভাব নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানো। দীর্ঘ এগারো বছর ধরে শ্রী শ্রী জগদ্ধাত্রী পুজো উপলক্ষে শীত বস্ত্র প্রীতি উপহার স্বরূপ কম্বল প্রদান করে চলেছে উত্তর ২৪ পরগণার জেলার নিউ বারাকপুরের পূর্বাঞ্চল অধিবাসীবৃন্দের সদস্যরা।

এবছর ও ব্যতিক্রম হয় নি। পুজো উপলক্ষে কোন জাকজমক অনুষ্ঠান নয়। রবিবার সন্ধ্যায় স্টেশন সংলগ্ন ১৭৫ নং মিনিবাস স্ট্যান্ডের সামনে প্রায় আট শতাধিক বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের হাতে শীত বস্ত্র স্বরুপ কম্বল তুলে দিল পূর্বাঞ্চল অধিবাসীবৃন্দের সদস্যরা ।জেলায় নজির দৃষ্টান্ত এই মানবিক উদ্যোগ গ্রহণে। ভবঘুরে অসহায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা শীত বস্ত্র না পেয়ে এদিকে ওদিকে ঘুরে বেড়ায় একটি কম্বলের জন্য। সেই সব আবাল বৃদ্ধ-বৃদ্ধারা ও ভবঘুরে পথবাসীরা কম্বল পেয়ে যার পর নেই বেজায় খুশি । পূর্বাঞ্চল অধিবাসীবৃন্দের সদস্যরা ও খুশি ও আনন্দিত তাদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের মুখে হাসি ফোঁটাতে পেরে।

পাশাপাশি পরের দিন হৃদয়পুর প্রণব কন্যা আশ্রমে আবাসিকদের এবং মধ্যমগ্রাম ব্যানার্জী পাড়ায় ধর্মপ্রিয় সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার মিশনে, গঙ্গানগর ভালোবাসা অনাথ আশ্রমে দুই শতাধিক বাচ্চা দের শুকনো খাবার, শীতের পোষাক, জুতো ফল মিষ্টি উপহার শুকনো খাবার তুলে দেওয়া হয় এদিন। কোভিড বিধি মেনে বাচ্চা থেকে বৃদ্ধ বৃদ্ধারা সকলেই মুখে মাস্ক পরে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। শীতের কম্বল নিতে বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের উপচে পড়া ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

নব বারাকপুর পূর্বাঞ্চল অধিবাসীবৃন্দের এগারো তম বর্ষের শীত বস্ত্র প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংঘের প্রধান পৃষ্ঠপোষক তথা পুরসভার ১২ নং ওয়ার্ডের কোঅর্ডিনেটর সৌমিত্র মজুমদার, পুরসভার উপ প্রশাসক মিহির দে, সমাজসেবী সুভাষ বন্দ্যোপাধ্যায়, হৃষিকেশ রায়, প্রাক্তন পুরপ্রধান তৃপ্তি মজুমদার সহ প্রশাসক মন্ডলীর সদস্যরা এবং পুরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের কোঅর্ডিনেটরা গণসংগঠকরা। পুজোর অন্যতম সমাজসেবী স্বপন দাস (ভোলা) শুধু জগদ্ধাত্রী পুজো নয় সারা বছর মানুষের পাশে থেকে কাজ করে চলেছে পূর্বাঞ্চল অধিবাসীবৃন্দের সদস্যরা।

করোনা অতিমারি আবহে এবং ইয়াস বিধ্বস্ত জলবন্দী দক্ষিণ ২৪ পরগনার গোসাবা সোনাগাও তিনটি গ্রামে ৪০০ পরিবারের হাতে খাদ্যসামগ্রী শুকনো খাবার পানীয় জল বাচ্চাদের দুধের প্যাকেট বিস্কুট মোমবাতি মাস্ক স্যানিটাইজার সাবান ধূপকাঠি দেশলাই পাতিলেবু পৌছে দিয়েছেন সদস্যরা। শুধু শীত বস্ত্র নয় অন্নদান ও করা হয় প্রায় কয়েক হাজার মানুষ মানুষের মধ্যে। অসুস্থ মানুষদের চিকিৎসা ও কন্যা দের বিবাহে ও পূর্বাঞ্চল অধিবাসীবৃন্দ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সাধ্যমতো সহায়তা করে। পরিকল্পনা রয়েছে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগী দের চিকিৎসা সহায়তা করবার।