অলোক আচার্য, নববারাকপুরঃ- চির নূতনেরে দিল ডাক পঁচিশে বৈশাখ। সোমবার বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬১ তম জন্মদিবস। জীবনের প্রতিটি পদক্ষেপ বলতেই রবীন্দ্রনাথ। কথায় কবিতায় সুরে গানে অভিনয় ভালোবাসায় চেতনায় সমাজ দর্পণে আবেগে আন্তরিকতায় শান্তি নিকেতনের রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর।রবীন্দ্রনাথ বাঙালির বড় আপনজন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

রাজ্যজুড়ে পালিত হচ্ছে রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তী। সকাল থেকে মাঝারি বৃষ্টি। প্রাকৃতিক দুর্যোগ উপেক্ষা করে ও যথাযোগ্য মর্যাদা সহকারে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬১ তম জন্মদিন পালন করল নববারাকপুর পুরসভা।আজ সকালে পুরসভার ৬নং ওয়ার্ডের সুহৃদ সংঘের সন্নিকটে রবীন্দ্র মর্মর মূর্তিতে মাল্যদান ও পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন করে শ্রদ্বার্ঘ জানান পুরসভার পুরপ্রধান প্রবীর সাহা, পুরদলনেতা ডাঃ পংকজ কুমার অধিকারী, কাউন্সিলর দেবাশিস মিত্র, সুমন দে, পুরসভার বড় বাবু সজল নন্দী মজুমদার সহ পুরকর্মী ও বিশিষ্ট জনেরা। এরপর পুরসভার প্রাঙ্গণে রবীন্দ্র প্রতিচ্ছবিতে মালা ও ফুল দিয়ে ও শ্রদ্বার্ঘ্য জানান হয়।

উপস্থিত ছিলেন পুরসভার পুরপ্রধান প্রবীর সাহা, উপ পুরপ্রধান স্বপ্না বিশ্বাস, কাউন্সিলর হৃষিকেশ রায়, দেবাশিস মিত্র, মনোজ সরকার, সুমন দে, কৃষ্ণা বোস, বেবি চক্রবর্তী, কুন্তলা সাহা, শোভা রায়, পূজা গুপ্ত সহ পুরসভার আধিকারিক সজল নন্দী মজুমদার, নোডাল অফিসার দেব প্রসাদ রাহা সহ পুরসভার বিভিন্ন দপ্তরের পুরকর্মী ও বাস্তুকার এবং ছাত্র যুব কর্মীবৃন্দ।

পুরপ্রধান প্রবীর সাহা বলেন, পুরসভার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে শহরে বিভিন্ন মনীষীদের জন্ম ও মৃত্যু দিন যথাযোগ্য মর্যাদা সহকারে পালন করা হবে। বাবাসাহেব ডঃ ভীমরাও রামজি আম্বেদকরের জন্মদিন থেকে চালু হয়েছে। গত রবিবার পুরসভার ৮নং ওয়ার্ডে রেডক্রসের প্রতিষ্ঠাতা জন হেনরি ডুনান্টের জন্মদিন পালন করা হয়। আজ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬১ তম জন্মদিন পুরসভার ৬নং ওয়ার্ডে কবিগুরুর আবক্ষ মর্মর মূর্তিতে মালা ও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি পুরসভা প্রাঙ্গণে তার প্রতিচ্ছবিতে ও যথাযথ ভাবে মালা ও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান পুরসভার বিভিন্ন কাউন্সিলর থেকে পুরকর্মীরা।

বাঙালি সংস্কৃতির একটি বিশেষ অঙ্গ রবীন্দ্রনাথের গান। তার লেখা কবিতা গান গল্প নাটক সারা বিশ্বের দরবারে জনপ্রিয়। সারা পৃথিবীর মানুষের কাছে গর্ব অনুভব করি। মহা মনীষীকে স্মরণ করতে পেরে নিজেরা গৌরবান্বিত হলাম। কবিগুরুর লেখা জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠান সমাপ্তি হয় পুরসভা প্রাঙ্গণে। বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলরগণ কবিগুরুর আদর্শ চিন্তাধারা প্রতিভা কথা সংক্ষেপে দু-চার কথা তুলে ধরেন।