অলোক আচার্য , নববারাকপুরঃ- শিক্ষা আনে চেতনা। চেতনা আনে পরিবর্তন। শিক্ষা মানুষের কাছে আলো পৌঁছে দিচ্ছে। আলোকিত করে জীবনের চলার পথ পরিবর্তন করছে নববারাকপুরের ত্রিধারা। বহু ছেলে মেয়ে সুপ্রতিষ্ঠিত সংস্থার থেকে পাঠ্য পুস্তক নিয়ে উচ্চ শিক্ষায়। রবিবার সকালে নববারাকপুরের বহুমুখী সামাজিক সংগঠন ত্রিধারার উদ্যোগে স্থানীয় আলোকতীর্থ প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে পঞ্চম শ্রেণী থেকে স্নাতক স্তর পর্যন্ত ৬০ জন পড়ুয়াদের পাঠ্য পুস্তক ও শিক্ষণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

প্রয়াত গৌরাঙ্গ চক্রবর্তীর স্মরণে ৪০ তম বর্ষের পুস্তক বিতরণী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পুরসভার মুখ্য প্রশাসক প্রবীর সাহা, দমদম কিশোর ভারতী বিদ্যালয়ের শিক্ষক অজিত দে, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের গবেষক অধ্যাপিকা সঞ্চরিতা দত্ত, সমাজসেবী সুভাষ বন্দ্যোপাধ্যায়, অসিত বন্দ্যোপাধ্যায়, কবি ও সাংবাদিক পূর্ণেন্দু চক্রবর্তী, নববারাকপুর থানার পুলিশ আধিকারিক রনজিৎ সর্দার সহ বিশিষ্ট গুণীজনেরা।

সংস্থার সম্পাদক গৌতম মজুমদার জানান, কোভিড বিধি মেনে নববারাকপুর সহ পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল অসহায় পড়ুয়াদের মধ্যে তাদের চাহিদা মতো পাঠ্যপুস্তক খাতা কলম প্রীতি উপহার তুলে দেওয়া হ’ল। বই পাওয়ার উপযুক্ত শ্রেষ্ঠ পাঁচ জন পড়ুয়াদের প্রয়াত শান্তি ঘোষ স্মরণে, প্রয়াত দুলালী দে স্মরণে, প্রয়াত দেবী গুহ মজুমদার স্মরণে, প্রয়াত ইন্দ্রজিৎ বসু স্মরণে এবং সুবোধ মুখোপাধ্যায় স্মরণে পুস্তক বিতরণ করা হয় এদিন।

পুর প্রশাসক বলেন, শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। মেরুদন্ডকে শক্তিশালী করতে গেলে শিক্ষার প্রয়োজন। অধ্যাপিকা সঞ্চরিতা দত্ত বলেন, দেশে নাগরিক হিসেবে বেঁচে থাকতে গেলে শিক্ষা দরকার। শিক্ষা কেউ ছিনিয়ে নিতে পারে না। শিক্ষা যত বেশি গ্রহণ করতে পারবে তত বেশি ভালভাবে বাচঁতে পারবে। মানব সম্পদকে সৃষ্টি করতে পারবে। উপস্থিত বিশিষ্ট জনেরা পড়ুয়াদের আর্শীর্বাদের পাশাপাশি তাদের উচ্চ শিক্ষা উৎসাহ প্রদানে অনুপ্রাণিত করেন। পড়ুয়ারা ও অভিভাবকদের উপস্থিতি ছিল লক্ষনীয়। সংস্থার মহিলা সদস্যদের আন্তরিকতা ও ছিল বেশ ভালো।

উল্লেখ্য ত্রিধারার সংগঠন থেকে বই পেয়ে বহু ছেলে মেয়ে দেশ বিদেশের সুপ্রতিষ্ঠিত হয়েছেন কেউ বা গবেষণা ও করছেন। এমনও নজির রয়েছে এলাকায়।