অলোক আচার্য, নববারাকপুরঃ- মূমূর্ষ মানুষের প্রাণ বাঁচাতে এক ফোঁটা রক্তের অভাবে একটি প্রাণ ও যেন না যায়। রক্তদান হৃদয়ের দান। কোন পণ্য নয়। জীবনদান। মহৎ দান। মানব দান। কলকারখানায় রক্ত তৈরি হয় না। মানুষই তৈরী করে। শ্লোগান কে সামনে রেখে উপহার বর্জিত একটানা ৩৯ বছর রক্তদান শিবির করে নজির স্থাপন করল নববারাকপুর ত্রিধারার সামাজিক সংগঠন। কেউ বা একশো বার রক্তদান করেন আবার কখনো ৩৯ বার টানা এই সংস্থায় রক্তদান করলেন এদিন। কলেজ পড়ুয়া থেকে ব্যবসায়ী, সমাজকর্মীরা এদিন রক্তদান করেন।

রবিবার স্থানীয় অনুভব ভবনের প্রথম তলে নববারাকপুরের বহুমুখী সামাজিক সংগঠন ত্রিধারার ৩৯ তম বর্ষের রক্তদান শিবিরে ৪৮ জন রক্তদান করেন। এর মধ্যে ৮ জন মহিলা রক্তদাতা। রক্ত সংগ্রহ করে আরজি কর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ব্লাড ব্যাঙ্ক। রক্তদাতাদের উৎসাহিত করতে শিবিরে উপস্থিত ছিলেন পুরসভার নববারাকপুর পুরসভার মুখ্য প্রশাসক প্রবীর সাহা, উপ প্রশাসক মিহির দে, প্রাক্তন ফুটবলার মৃত্যুঞ্জয় হাজরা, সমাজসেবী সুদীপ্ত বন্দ্যোপাধ্যায়, সাংবাদিক প্রদীপ মজুমদার, পূর্ণেন্দু চক্রবর্তী, সমাজকর্মী অসিত ভট্টাচার্য, হৃষিকেশ রায়, অসিত বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বিশিষ্ট জনেরা। সামাজিক দায়বদ্ধতা পালনে সংগঠনের ধারাবাহিক মানবিক সেবার দীর্ঘ পথ চলার কাজের প্রশংসা করেন উপস্থিত বিশিষ্ট জনেরা।

সংগঠনের সম্পাদক গৌতম মজুমদার বলেন, ৮২ সাল ধারাবাহিক ভাবে ৩৯ বছর রক্তদান শিবির করে চলেছে সংগঠন। সরকারি আর্থিক প্রতিবন্ধকতার মধ্যে ও রক্তদান ছাড়া সংগঠন সারা বছর নানাবিধ সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সেবা মূলক কর্মসূচি পালন করে থাকে। পড়ুয়াদের বইদান, শিক্ষণ সামগ্রী প্রদান, স্বাস্থ্য পরীক্ষা শীতবস্ত্র কম্বল প্রদান, রক্তদান বিষয়ক উদুদ্ধকরন আলোচনা, রাখি বন্ধন উৎসব, দাতব্য চিকিৎসা কেন্দ্র করে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সাধ্যমতো পরিষেবা দেওয়া হয়। মহিলাদের আন্তরিকতা ছিল চোখে পড়ার মতো। কোভিড বিধি মেনে আগত রক্তদাতাদের হাত স্যানিটাইজ করে মাস্ক পরে রক্তদান করেন। একটা উৎসবের চেহারা নেয় ত্রিধারার এই মানবিক দান।