সংবাদদাতা, দেগঙ্গা :- শারীরিক প্রতিবন্ধী যুবককে লকাপের মধ্যে পিটিয়ে মারার অভিযোগ উঠল রেল পুলিশের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে দেগঙ্গার ভাসলিয়া চাতরা এলাকায়। মৃত যুবকের নাম গৌতম মন্ডল(২৭)। পরিবারের অভিযোগ, গত শুক্রবার সে বাড়ি থেকে কাজের উদ্দেশ্যে বার হয়েছিল । ব্যারাকপুর নীলগঞ্জ এলাকায় বই খাতা বিক্রির কাজ করতো। সেখান থেকে কাজ শেষ করে শুক্রবার বিকালে সে যখন বাড়ি ফিরছিল। তখন লক্ষ্য করে বারাসাতে স্টেশনে অবরোধ চলছে। অবরোধের শেষ মুহূর্তে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়। সেই সময় এক নম্বর প্ল্যাটফর্মের ট্রেন ধরতে উদ্যত হয় গৌতম। আর তখনই জিআরপি পুলিশ এসে তাকে মারতে মারতে তুলে নিয়ে যায়। গৌতম মন্ডলের মায়ের অভিযোগ, তাঁর ছেলে শারীরিক প্রতিবন্ধী হলেও সুস্থ স্বাভাবিক ছিল। লকাপে গিয়ে পুলিশকে টাকা দিয়ে ছেলেকে ছড়াতে চেয়েছিলাম। কিন্তু শোনেনি। এমনকি তাকে খেতে দেওয়া হচ্ছিল না।গৌতমকে যে অফিসার পিটিয়ে মেরেছে তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে তাঁর পরিবার। গৌতমের স্ত্রীর দু মাসের অন্তঃসত্ত্বা। গোটা পরিবারের আয়ের একমাত্র সম্বল সে। গৌতমের মা ও স্ত্রীকে নিয়ে তিন জনের সংসার ছিল।গোটা পরিবারে শোকের ছায়া নেমেছে। রেল পুলিশ তাকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে। গোটা ঘটনার জেরে ক্ষোভে ফুঁসছে এলাকাবাসী।