সনাতন গরাই, দুর্গাপুর :- গ্রীষ্ম,বর্ষা,শীত সবসময়ই বন্ধ ওয়াটার এটিএম। দুর্গাপুরের বিভিন্ন জায়গায় করা হয়েছিল এই জলের পরিষেবা কেন্দ্রগুলো। মাঝে মাঝে রঙচঙে করা হয় এটিএম এর দেওয়াল গুলো। সাধারণ মানুষের কথা ভেবে এই জলের পরিষেবা কেন্দ্র গুলি করা হয়েছিল, কিন্তু করেই বা কি লাভ হলো শুরুর সময় থেকে এক বারের জন্যও খোলা হয়নি।এই পরিষেবা কেন্দ্র গুলি খোলা তো দূরের কথা বাইরে ভর্তি বিষাক্ত আগাছাই। দুর্গাপুর জুড়ে এখনো হা হা কার জলের।সাধারণ মানুষ চাতক পাখির মত জল খুঁজে বেড়ালেও কোথায় মেলে না জল। দোকানে লিটার পিছু জল কিনতে গেলে লাগে ২০টাকা। আর এই এটিএম গুলোর থেকে জল নিলে লিটার পিছু লাগত দুই টাকা।দুর্গাপুর মিউনিসিপ্যালিটি থেকে করা হয়েছিল এই জলের পরিষেবা কেন্দ্রগুলি। দুর্গাপুর পৌরসভার দাবি পর্যাপ্ত জল না থাকায় এবং বিদ্যুৎ পরিষেবা ঠিক ঠাক না থাকায় এইগুলি চালু করা সম্ভব হয়নি।তবে পরিকল্পনা চলছে আর কিছুদিনের মধ্যে সম্যসা গুলো কাটলেই শুরু করা হবে এই জলের পরিষেবা কেন্দ্রগুলো।

দুর্গাপুর বাসী এখন চাতক পাখির মত এই জল পরিষেবা কেন্দ্র গুলির দিকে তাকিয়ে।আদৌও কি এই ওয়াটার এটিএম গুলো স্বাভাবিক হবে না কি একই পরে থাকবে,এটাই এখন দেখার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 + 4 =