সনাতন গরাই, দুর্গাপুর :- সমাজ যখন কুসংস্কারে ভরে যায়, মানুষ যখন দিশেহারা হয়ে যায় তখন সেই কুসংস্কার থেকে বের করে মানুষকে নতুন ভাবে পথ চলার পথ দেখায় সামাজিক থেকে ভক্তিমূলক যাত্রা। বর্তমানে এই যাত্রার কদর একদম কমে আসছে, তবুও যাত্রাপ্রেমী মানুষেরা এই যাত্রাকে আঁকড়ে রেখে নতুন স্বপ্ন দেখে। এই রকমই একদল যাত্রাশিল্পীদের দেখা মিলল পশ্চিম বর্ধমানের কাঁকসার বিষ্ণুপুরে।একজন যাত্রা শিল্পী জানান, তারা নেশায় যাত্রা করে পেশায় না।তারা বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সম্মান পেয়েছেন। বীরভূম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বর্ধমান থেকে শুরু করে বিভিন্ন জায়গায় যাত্রা করে মানুষদের আনন্দ দেয়, শিক্ষা দেয়–বিনিময়ে পাই অল্প কিছু টাকা। তাদের নিজস্ব যাত্রা দল আছে কিন্তু টাকার অভাবে যাত্রাদলের উন্নতি হচ্ছে না বলে জানান। সরকারিভাবে কোনোরকম সাহায্যের আশ্বাস মেলেনি এখনো পর্যন্ত। যাত্রা করতে হয় নিজের পকেট থেকে টাকা দিয়ে। এক একটা যাত্রা করতে খরচ হয় কুড়ি থেকে ত্রিশ হাজার। কিন্তু তারা পথ চেয়ে আছে সরকারের সাহায্যের দিকে। তবে কবে মিলবে সরকারি সাহায্য , না কি বিষ্ণুপুরের যাত্রাশিল্পীদের যাত্রা টাকা পয়সার অভাবে ধ্বংস হয়ে যাবে। সেটাই এখন দেখার।