সানওয়ার হোসেন, ডায়মন্ড হারবার :- বৃহস্পতিবার সকালে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়ক ডায়মন্ড হারবার নদীর ধারে রাস্তায় ধস নেমে যায়। সেখানে সৌন্দর্যায়নের কাজ চলছিল। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়ে ডায়মন্ড হারবার থানার পুলিশ এবং ডায়মন্ড মহকুমা প্রশাসন রাস্তা পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। এরফলে সকাল সাতটা থেকে গাড়ি চলাচল বন্ধ যায়। সমস্ত গাড়িকে ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে বাইপাস রোড ধরে। সূত্রের খবর, ১১৭ নং সড়কে ডায়মন্ড নদীর ধারে আজ সকালে হঠাৎ এই রাস্তায় ধস দেখা দেয়। স্থানীয় বাসিন্দারা দেখতে পেয়ে পুলিশ এবং প্রশাসনকে খবর দেয়। পুলিশ প্রশাসন নামখানা কাকদ্বীপ গ্রামের সমস্ত বাস এবং কলকাতাগামী সমস্ত বাসকে বাইপাস রোড দিয়ে ঘুরিয়ে দিয়েছে। খবর দেওয়া হয়েছে পূর্ত দপ্তরকেও। জানা গিয়েছে, হুগলি নদীর ধারে ডায়মন্ড হারবারে সৌন্দর্যায়নের কাজ চলছিল। পাশাপাশি হুগলি নদীর জলোচ্ছ্বাসের ঢেউ ক্রমশ গ্রাস করছিল ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়ক। তার ফলেই জাতীয় সড়কে বড় ধরনের ধস দেখা দেয়। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন পুলিশ প্রশাসনের পদস্থ কর্তারা সহ ডায়মন্ডহারবার মহকুমা শাসক, ডায়মন্ড হারবার পুরসভার পুরপ্রধান, ডায়মন্ড হারবার বিধায়ক দীপক হালদার। প্রশাসনের তরফ থেকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, আগামী ১৫ দিন এই রাস্তা বন্ধ থাকবে। এই সড়কের রাস্তার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত গাড়ি চলাচলের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের যাতায়াত বন্ধ থাকবে। ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়কের ডায়মন্ড হারবার নদীর ধারে ধস পরিপ্রেক্ষিতে কাকদ্বীপ সাগর পাথরপ্রতিমা রায়দিঘি এলাকার সাধারণ মানুষের কলকাতা যাওয়ার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে। প্রশাসন হটুগঞ্জ বাইপাস রোড দিয়ে যানবাহন চলাচলের নির্দেশ দিয়েছে। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলা শাসক পি. উল্গাথন জানান, আমরা খবর পেয়েছি ডায়মন্ড হারবার নদীর ধারে ধ্বস নেমেছে । কেন এই ঘটনা ঘটলো ঘটলো সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য জেলা প্রশাসনের বিশেষ টিম পাঠানো হচ্ছে পাশাপাশি যে সংস্থা কাজ করছে তাদের সঙ্গে কথা বলবে জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্তারা।