সুজয় মন্ডল, বসিরহাট :- তান্ত্রিকের স্বপ্ন সাধনা সিদ্ধ করার জন্য শিশুর প্রাণ নিল আরো এক উচ্চমাধ্যমিক ছাত্রী আশঙ্কাজনক, বাড়িতে আগুন। পুলিশ সূত্রে জানা যায় স্বরূপনগরের বাঁকড়া গোকুলপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কাবিলপুর গ্রামের বাসিন্দা নিত্যানন্দ ঘোষের স্ত্রী আলপনা ঘোষ। তন্ত্রসাধনার নামে দীর্ঘদিন ধরেই এলাকাবাসীকে বিভিন্ন গাছ গাছড়ার শিকড় ও রাসায়নিক ওষুধপত্র খাওয়াতেন তিনি। তেমনভাবেই গত কয়েকদিন আগে গ্রামের দ্বাদশ শ্রেণির এক ছাত্রীকে শারীরিক গঠন ঠিক করতে নিজের কেরামতি ফলান ওই তান্ত্রিক। তান্ত্রিকের দেওয়া গাছের শিকড় খেয়ে তার পরদিন থেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ে ওই ছাত্রী। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় স্থানীয় হাসপাতাল থেকে তাকে কলকাতায় আরজিকর মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করা হলে বর্তমানে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সে। জানা যায়, দুমাস আগে একইভাবে ওই তান্ত্রিকের ঔষধ খেয়ে মৃত্যু হয়েছিল আরও একটি শিশুর। সেই ঘটনার পরে আবারো ওই ছাত্রীকে শিকড় খাওয়ানোর পর থেকে অসুস্থ হয়ে পড়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে উত্তেজিত হয়ে ওঠেন গ্রামবাসীরা। তন্ত্রসাধনার নামে বুজরুকি করার অভিযোগে তার বাড়িতে হানা দিয়ে ভাঙচুর করার পাশাপাশি আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় একটি গাড়িতে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে স্বরূপনগর থানার পুলিশ। গ্রামবাসীরা বাড়িতে হানা দেওয়ার পর থেকেই বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত আলপনা ঘোষ। মূল অভিযুক্তকে ধরা না গেল তার স্বামী নিত্যানন্দ ঘোষ ও ছেলে বৌমাকে আটক করা হয়েছে বলে জানা যায় পুলিশের পক্ষ থেকে।