নিজস্ব সংবাদদাতা, বারাসতঃ- তৃতীয়বার ক্ষমতায় এসেই তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার মন্ত্রী সভার কিছু গুরুত্বপূর্ণ দফতরের মন্ত্রী পরিবর্তন করে জল্পনা উসকে দিলেন। খাদ্যমন্ত্রীর মতো গুরুত্বপূর্ণ দফতর থেকে মুখ্যমন্ত্রীর স্নেহধন্য উত্তর ২৪ পরগণায় তৃণমূলের জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক কে সরিয়ে সেখানে মধ্যমগ্রামের বিজয়ী প্রার্থী রথীন ঘোষকে বসালেন। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক কে বন দফতরের মতো অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে বসিয়ে রাজ্যবাসীকে মুখ্যমন্ত্রী নতুন বার্তা দিলেন বলেই রাজনৈতিক মহল মনে করছে।

গত ২টি টার্মেই রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। সেখানে প্রথম বার মন্ত্রী সভায় স্থান পেয়েই খাদ্য দফতরের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পেলেন রথীন ঘোষ। বিষয় টি নিয়ে ও রাজনৈতিক মহলে ও তৃণমূলের অন্দরে জোর জল্পনা চলছে।

এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বিরোধীদের তরফে খাদ্য দফতরও খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠেছিল। সে ক্ষেত্রে জেলা সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে রাজনৈতিক ভাবে কি কোনঠাসা করা হল কিনা, তা নিয়ে ও চলছে জল্পনা।

প্রশ্ন উঠছে ড্যামেজ কন্ট্রোলের জন্যই কি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই সিদ্ধান্ত? যদিও বিষয় টি নিয়ে মুখে কুলুপ এটেঁছেন জেলার তৃণমূল নেতারা।

সোমবার সকাল ১১টার সময় পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন মধ্যমগ্রামের বিধায়ক রথীন ঘোষ। করোনা হওয়ার কারনে তিনি শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের না গিয়ে বাড়িতে বসেই ভার্চুয়ালি শপথ নিয়েছেন বলে জানা যায় । এদিন সকাল থেকে মধ্যমগ্রামের মাইকেল নগরে রথীন ঘোষের বাড়ির সামনে আশেপাশের মানুষের ভিড় জমতে শুরু করে। তিনি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, খুবই ভালো লাগছে মুখ্যমন্ত্রী তার ওপরে আস্থা রেখেছেন। মন্ত্রীত্ব যে কাজই আমাকে দেওয়া হোক না কেনো, সেই কাজই ভালো ভাবে করার চেষ্টা করবো। আমার উঁচু মাথাকে আরো উঁচু করবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ten + 19 =