সনাতন গরাই, পশ্চিম বর্ধমান :-  রাম কে নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক খেলা। রামনবমীর “জয় শ্রী রাম” ধ্বনি যেন এক ভয়াবহ রূপ ধারণ করে করে এই রামনবমীর দিনে।কিন্তূ জঙ্গলের এই জায়গা সম্পূর্ণ আলাদা। নেই কোনো রাজনৈতিক পরিবেশ, যেখানে সমস্ত বর্ণের মানুষ আসেন।

রাজা লক্ষণ সেন প্রথম দুর্গাপূজা শুরু করেছিলেন এই গভীর জঙ্গলে,তার পর থেকেই শুরু দুর্গাপূজা। বাসন্তীক দুর্গাপূজায় আসল দুর্গাপূজা।বাসন্তিক দুর্গাপূজা রাজা সুরথ প্রথম চালু করেছিলেন।মেধস মুনির কাছে দীক্ষা নিয়ে নিয়ে প্রথম দুর্গাপূজা শুরু করেছিলেন।

রাঢ় বাংলার ঘন সাল,মহুয়া জঙ্গলের ভেতর অবস্থিত শ্যমরুপা মন্দির গড় জঙ্গলে বিরাজ করেন মা শ্যামরূপা দেবী।প্রচুর ভক্তের সমাগম হয় শরৎ এর দুর্গাপূজায়।বাসন্তিক দূর্গাপূজাতেও কয়েক হাজার লোকের সমাগম হয়।দুর্গাপূজায় মতোই চারদিন ধরে চলে বাসন্তিপূজা।সমস্ত ভক্তের জন্য থাকে অন্নকূটের ব্যাবস্থা।এই ভাবে চলে গভীর জঙ্গলে মা শ্যামরূপ দেবীর আরাধনা।
বর্তমান সরকারের আওতায় এসে মন্দিরের সংস্কার হয়েছে,পর্যাপ্ত পানিও জলের ব্যাবস্থা হয়েছে বিদ্যুৎ পৌঁছয়েছে।