সানওয়ার হোসেন, পাথর প্রতিমা:- দক্ষিণ ২৪ পরগণার পাথরপ্রতিমা ব্লকের বনশ্যাম নগর গ্রাম পঞ্চায়েতের এক দরিদ্র পরিবারের ছেলে ক্যান্সারের ওষুধ আবিষ্কার করে দিল্লি চললেন কেন্দ্র সরকার ডাকে। একদম দরিদ্র পরিবারে জন্ম গৌরহরি মাইতি। বয়স মাত্র ৩৮। সংসারে মা, এক মানসিক ভারসাম্যহীন ভাই, স্ত্রী এবং এক ছেলে ও মেয়ে নিয়ে তাদের সংসার। গৌরহরি দরিদ্র পরিবারে জন্মগ্রহণ করলেও স্কুল জীবন থেকেই ছিল গাছগাছালি নিয়ে কিছু তৈরি করার আকুল ইচ্ছা। মাধ্যমিক পাস করার পর কবিরাজি করা পেশা হয়ে দাঁড়ায় তার জীবনে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া ‘আমার আবাসন’ ঘরের সবেমাত্র নাম এসেছে, তাতেই তারা খুশি। বর্তমানে ছিটে বেড়ার ঘরে বসবাস করে। সেই ঘরে একটি টেবিলের উপরের বিভিন্ন গাছ গাছালি গাছের শিকড়। সেখান থেকেই আবিস্কার করে ফেলেছে ক্যান্সারের এক ওষুধ। তিনি প্রথমে পশুদের উপরে প্রয়োগ করে তা সফল হয়েছে। সেই ওষুধ গ্রামের মানুষের অনুপ্রেরণায় স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য কেন্দ্র সরকারের কাছে পাঠায়। তা প্রায় এক বছর আগে, গতকাল যে কেন্দ্র সরকার থেকে তার চিঠি আসবে সাক্ষাতের জন্য সেটা কোনোদিন ভাবতে পারিনি গ্রামের ছেলে গৌরহরি মাইতি। চিঠি আসার পর থেকে আনন্দে আত্মহারা পরিবারের লোকজন থেকে শুরু করে গ্রামের লোকজন।