নিজস্ব প্রতিনিধি, বসিরহাট :- বসিরহাট ২ নম্বর ব্লকের কৃপালপুর গ্রামের বাসিন্দা হাসানুজ্জামান মন্ডল ঝাড়ফুঁকের মত বুজরুকি কারবার করতেন বলে পরিচিত এলাকাবাসীর কাছে। সোমবার রাতে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তোলে তারই বাড়িতে আশ্রিতা আনুমানিক ১২ বছর কিশোরী । জানা যায়, আরামবাগের খানাকুল এলাকার বাসিন্দা ওই শিশুটি। কিশোরীর বাবা একটি মিষ্টির দোকানের কর্মচারী। আর দুসপ্তাহ আগে শিশুটিকে হাসানুজ্জামানের বাড়ি রেখে চলে যান তার মা। সোমবার রাতে বাড়ি থেকে পালিয়ে যাচ্ছিল কিশোরী। রাতের অন্ধকারে কিশোরীকে একা রাস্তায় দেখে স্থানীয় বাসিন্দারা জিজ্ঞাসাবাদ করতেই কিশোরী পুলিশের দ্বারস্থ হতে চায় বলে জানায় বাসিন্দাদের। কিন্তু রাতে কিশোরীকে নিজেদের হেফাজতে রেখে সকালে মাটিয়া থানার পুলিশকে খবর দিলে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে মাটিয়া থানার পুলিশ। প্রাথমিকভাবে কিশোরীর মা গত দুই সপ্তাহ আগে মেয়েকে ওখানে রেখে চলে যাওয়ার কয়েকদিন পর থেকেই কিশোরীর উপর শারীরিক ও পাশবিক নির্যাতন শুরু করে বলে জানা যায় পুলিশের পক্ষ থেকে। এমনকি ওই ব্যক্তির অন্যায় আবদার অমান্য করায় গরম খুন্তির ছ্যাকা দেওয়া হয় কিশোরীর হাতে। স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় বুজরুকি কারবার এর পাশাপাশি মহিলাদের নিয়ে নোংরা ব্যবসা চালাতেন হাসানুজ্জামান। কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত হাসানুজ্জামানের বিরুদ্ধে পকসো ধারায় মামলা রুজু করে মাটিয়া থানার পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 × 5 =