সনাতন গরাই, দুর্গাপুর :- কাঁকসার বিদবিহার গ্রাম পঞ্চায়েতের চার পাঁচটি গ্রামের মানুষের একমাত্র যাতায়াতের রাস্তা এই টুমুনি নদীর সেতু।প্রায় বছর তিনেক আগে পুরাতন ব্রিজ একদম ভেঙে যায়, যার ফলে কিছুদিন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।তারপর কোনোরকম গ্রামের মানুষ টুমুনি নদীর মধ্যে মাটির রাস্তা তৈরি করে। বারেবারে পঞ্চায়েতে জানানো সত্ত্বেও কোনো কাজ করেনি।

পরে বছর তিনেক পর এলাকার মানুষের চরম বিক্ষোভের পর কাজ শুরু হয় নতুন ব্রিজের।ছয় মাসের মধ্যে সেতু পুরোপুরি তৈরি হয়ে যাওয়ার চুক্তি হয় ঠিকাদারের সাথে।তারপর থেকে ঠিকাদার কিছুদিন কাজ করার পর বেপাত্তা হয়ে যায়। এলাকার মানুষ জানান আমাদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয় এই রাস্তার জন্য।একবছর আগে কাজ শুরু হয়েছে তারপর কয়েকমাস কাজ হওয়ার পর থেকে কাজের দায়িত্বে থাকা ঠিকাদার বেপাত্তা হয়ে যায়।

অপরদিকে ঠিকাদার জানাই বর্ষার কারণে কাজ বন্ধ হয়ে আছে কিছুদিন পর আবার শুরু হবে।এলাকার মানুষ জানান এখনো কিছু কর্মী টাকা পাবে তাদের টাকাও দেয় নি,ঠিকাদারকে ফোন করলে ফোন ধরে না। এই বছর বৃষ্টি তো হয় ই নি আর বলছেন কাজ বন্ধ বৃষ্টির জন্য।ঠিকাদার জানান ওই এলাকার একাধিক গোষ্ঠী এক এক গোষ্ঠীর এক এক রকম কথা।

বিদবিহার পঞ্চয়েত সূত্রের খবর ঠিকাদার হুট করে কিছু না বলে সবকিছু ফেলে চলে গেছে। যার ফলে সবাইকে সম্যসাই ভুগতে হচ্ছে।পঞ্চয়েত সূত্রে খবর জেলা পরিষদে বিষয়টা জানানো হয়েছে । পঞ্চয়েত সমিতির সভাপতি নিখিল ডোম জানান, আমার কাছে তেমন কোনো খবর ছিল না এবার পেলাম এবং খতিয়ে দেখছি পুরো বিষয়টা।এলাকার মানুষ জানান এই কাজ কিছুদিনের মধ্যে সম্পূর্ণ না হলে চরম বিক্ষোভে নামবো।