সনাতন গরাই, দুর্গাপুর :- ২০১৬ সালের আগে ছিলেন অবিভক্ত সালবনি থানার পুলিশ ইন্সপেক্টর অভিজিৎ চক্রবর্তী। লম্বা ৭ফুটের তরতাজা চেহারা পুলিশি বেশে যাকে দেখলেই মানুষ ভয় পেত। কিন্তু ২০১৬ সালের পর পরিস্থিতিও হার মেনে গেলো এই সাব ইন্সপেক্টরের কাছে। একদম বন্দুক ছেড়ে ইন্সপেক্টরের রূপ ছেড়ে ধারণ করলো বাউল বেশ। যাকে দেখলে মানুষ ভয়ে কাঁপত। আজ তার গান শুনলে মানুষ কাছে না এসে থাকতে পারে না।

ছোট থেকেই ভালো বাসতেন বাউল গান কিন্তু পুলিশের চাকরি পাওয়ার পর থেকে গান আর তেমন গাওয়া হত না। বাউল সম্রাট অভিজিৎ চক্রবর্তী জানান, এখন আমি গানকে ভুলে একমুহূর্তের জন্যও থাকতে পারি না। আমার ২০১৬ র আগে একমাত্র সম্বল ছিল বন্দুক, তারপর একসময় আমার প্রচন্ড ঝামেলায় জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে গুলি করেছিলাম আর সেই গুলিতে মৃত্যু হয়েছিল দুইজনের।

গোঁসাই চাইলে কী না করতে পারে। তাই তো আমাকেও একদম পরিবর্তন করে পুলিশ পোশাকটাই খুলতে বাধ্য করে দিলেন। তারপর থেকেই আমার সম্বল হল দোতরা আর বাউল। আজ এখানে তো, কাল ওখানে। আজ কাঁকসার বিষ্ণুপুরে এসেছি জয়দেব ভাণ্ডারীর মহাকাল সেবাশ্রমে। এখানে প্রচুর ভক্তের সমাগম হয়। এখন তিনি গানের মধ্যে দিয়ে বলেন “শ্মশানে কি করে রব একা একা”……….।