অলোক আচার্য, নববারাকপুরঃ- এবছর বাংলার দুর্গাপুজো ইউনেস্কো স্বীকৃত পেয়েছে। ইউনেস্কো বাংলার দুর্গাপুজোকে সম্মান দিয়েছে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইউনেস্কো স্বীকৃত স্বরূপ বাংলায় রেডরোডে এক বিরাট মিছিল করে। বাংলার দুর্গাপুজো শুভ উদ্বোধন করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার দুর্গাপুজোকে বিশ্ব জনীন করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ইউনেস্কো স্বীকৃত বাংলার দুর্গাপুজো উপলক্ষে শনিবার বিকেলে নববারাকপুর পুরসভার উদ্যোগে পুরসভার ২নং ওয়ার্ড স্থিত ঐতিহ্যবাহী সার্বজনীন কালিমন্দির অঙ্গন থেকে এক বর্ণময় উৎসব মুখর শোভাযাত্রা উদ্বোধন করেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।

মন্ত্রী বলেন, ইউনেস্কো ধন্যবাদের পাশাপাশি চিন্ময়ী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মাকে নিয়ে গিয়েছেন বিশ্বের মাঝে। সেরা করে দেখিয়েছেন। বড় কৃতজ্ঞতা জানাই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ইউনেস্কো সার্বিকভাবে এই কাজটা করেছে। মুখ্যমন্ত্রী বার বার বলেন, ধর্ম যার যার উৎসব সকলের। মুখ্যমন্ত্রী সেই কাজটাই করেছেন। বাংলার দুর্গাপুজো আজ বিশ্ব জনীন। জেলা জুড়ে বিভিন্ন পুরসভা স্তরে ইউনেস্কো স্বীকৃত দিচ্ছেন। উত্তর দমদম পুরসভার পর নববারাকপুর পুরসভা ইউনেস্কো কে ধন্যবাদ জানিয়ে বিরাট শোভাযাত্রা করছে। খুব সুন্দর উপহার দিল নববারাকপুর বাসীকে পুরসভা। দেবীপক্ষের আগে। বিরোধীরা অনেক কিছু বলছে। করছে। হাইকোর্ট গিয়েছে। দুর্গাপুজো করতে দিই না। চিন্ময়ী মা কে শ্রদ্ধা করতে শিখুন তারপর মৃন্ময়ী মাকে শ্রদ্ধা করতে পারবেন। চিন্ময়ী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মৃন্ময়ী মাকে নিয়ে গিয়েছেন বিশ্বের দরবারে। বড় করে কৃতজ্ঞতা জানাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে। বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা নববারাকপুরে বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করে শেষ হয় কৃষ্টি প্রেক্ষাগৃহের সামনে।

বিশেষ আকর্ষণ পুরুলিয়া আদিবাসীদের ছৌ নাচ। উপস্থিত ছিলেন সাংসদ সৌগত রায়। সৌগত রায় বলেন, দেবী পক্ষে সূচনার আগে নববারাকপুরে আনন্দ বন্যা শুরু করল নববারাকপুর পুরসভা। বিরাট বর্নময় বর্ণাঢ্য সুসজ্জিত শোভাযাত্রা কয়েক হাজার মানুষ রাস্তায় হেঁটে ইউনেস্কো স্বীকৃত স্বরূপ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী কে সন্মানিত করল। শহরের বিভিন্ন মানুষ ঐক্যবদ্ধ ভাবে শোভাযাত্রা অংশগ্রহণ করে আলোড়ন ফেলে দেয় এদিন।

বিভিন্ন ক্লাব সংগঠন, ফেস্টুন ব্যানার নিয়ে বিদ্যালয় মহাবিদ্যালয় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান পঞ্চায়েত সদস্যরা বিভিন্ন ওয়ার্ডের পুর প্রতিনিধি গন ক্রীড়বিদ খেলোয়াড় ঢাক কাশী বাদ্যযন্ত্র দেবী দুর্গা প্রতিমা নিয়ে শোভাযাত্রা অংশগ্রহণ করেন এদিন। কৃষ্টি প্রেক্ষাগৃহে হয় দীপ্তদীপ সংগীত একাডেমির মহিষাশুরমদ্দিনী লাইভ। পুরসভার পুরপ্রধান প্রবীর সাহা বলেন পুরসভার বোর্ড মিটিং সিদ্ধান্ত দশ দিনের মাথায় পুরসভার উদ্যোগে ইউনেস্কো স্বীকৃত বাংলার দুর্গাপুজো উপলক্ষে বর্ণময় উৎসবমুখর শোভাযাত্রা শহরের মানুষ স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ করে। বিরাট সাফল্য পেয়েছি পুরবাসীদের ঐক্যবদ্ধ সার্বিক সহযোগিতায়।