আবার বিধ্বংসী আগুনে ভস্মীভূত গেঞ্জি কারখানা, দমকলের ২০টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে

0
Advertisement

সংবাদদাতা, বারাসত :- নিউব্যারাকপূরের বিলকান্দা গ্রাম পঞ্চায়েতের গেঞ্জির কারখানায় ভয়াবহ আগুন। আগুনে কয়েক লক্ষ টাকার সম্পত্তি নষ্ট । খবর পেয়ে ২০টি দমকলের ইঞ্জিন যায় ঘটনাস্থলে যায়। ছুটে আসেন দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু । প্রাণহানি বা কারো নিখোঁজ হওয়ার খবর নেই । সূত্রের খবর কেউ আটকে পড়েননি কারখানার ভেতরে ।

উল্লেখ্য এক গেঞ্জির কারখানা থেকে আগুন ছড়ায় আরো দুটি গেঞ্জির কারখানায় । বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আগুন যখন নজরে আসে তখন রাত দশটার বেশি বেজে গেছে । আগুনের প্রাবল্য রাত বাড়ার সঙ্গে বাড়ে । শুক্রবার মধ্যরাত পর্যন্ত দাউ দাউ করে জ্বলা আগুনের লেলিহান শিখা গ্রাস করে নেয় উৎপত্তি স্থল প্রথম গেঞ্জির কারখানাটিকে পরে যা দ্রুত ছড়ায় অন্য দুই কারখানায় । সাজিরহাট এলাকার বিলকান্দা এলাকাটি ঘন বসতিপূর্ন হওয়ায় সমস্যা বাড়ে । ,ঘটনা স্থলে দমকলের কুড়িটি ইঞ্জিন এসে রাত দুটো নাগাদ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনলেও ক্ষয়ক্ষতি ততক্ষনে মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। সূত্রের খবর ,কারখানার মধ্যে প্রচুর দাহ্য পদার্থ থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ও আগুন আয়ত্বে আনা দুঃসাধ্য হয়ে ওঠে । আগুনের কারণ নির্ণয় করা সম্ভব না হলেও বিষয়টি তদন্তসাপেক্ষ বলে জানিয়েছে দমকল আধিকারিকবৃন্দ । অন্যদিকে জনতার ক্ষোভ যে ঘন জনবসতির মধ্যে এই কারখানা গুলি অনুমোদন পেল কি করে যেখানে এবছরেই কয়েকমাসের মধ্যে ঘটেছে একাধিক অগ্নিকাণ্ড । সর্বোপরি , প্লাস্টিক চেয়ার কারখানার গোডাউনে আগুন লেগে কার্যত একই এলাকায় প্রাণ হারিয়েছেন পাঁচজন । মন্ত্রী সুজিত বসু এসেই জানান , কারখানার বৈধ কাগজপত্র ছিল কিনা খতিয়ে দেখা হবে । রাতে দুটোর পরে আগুন জ্বলতে থাকে, দমকলকর্মীদের তৎপরতায় কমে আসে প্রাবল্য । তবুও ক্ষোভ প্রশমিত হয় নি এলাকাবাসীর । প্রশ্ন নিরাপত্তার , প্রশ্ন অনুমোদন ও বৈধতার ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

17 − 12 =