আত্মীয়ের বাড়িতে যাবে বলে বেড়িয়ে এক সপ্তাহ ধরে নিখোঁজ বারাসাতের এক সিভিক ভলেন্টিয়ারের মা, দ্রুত খোঁজার জন্য পুলিশের কাছে পরিবারের আর্জি

0

কলমের দুনিয়া, বারাসাত :- বারাসাতে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে নিখোঁজ এক সিভিক ভলেন্টিয়ারের মা। যমুনা বিশ্বাস (৪৬) নামে ওই মহিলার এখনও কোনও খোঁজ না মেলায় দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে পরিবারের। ঘটনার পর‌ই বারাসাত থানায় নিখোঁজ ডায়রি করে তাঁর পরিবার। কিন্তু, সেখান থেকে শুধুই মিলেছে আশ্বাস! কাজের কাজ কিছু হয়নি!পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বারাসাত পৌরসভার ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের নিবেদিতা পল্লীতে বাড়ি যমুনা দেবীর। বাড়িতে স্বামী ছাড়াও দুই ছেলে, ব‌উমা রয়েছে। যমুনা দেবীর ছোট ছেলে সুমিত সিভিক ভলেন্টিয়ারের কাজ করে। বারাসত ডাকবাংলো মোড়ে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে রয়েছেন তিনি। গত ১৯ আগস্ট সুমিতের মা যমুনা বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন বসিরহাটে এক আত্মীয়ের বাড়িতে যাবেন বলে। আত্মীয়ের বাড়িতে ঠিকমতো পৌঁছেছেন কিনা, তা জানার জন্য ওইদিন রাতে সেখানে ফোন করেন সুমিত। তাঁরা জানায়, যমুনা দেবী সেখানে আসেননি। শুরু হয় বিভিন্ন জায়গায় খোঁজখবর। কিন্তু, কোথাও ওই মহিলার হদিশ মেলেনি। এরপর ২০ আগস্ট বারাসত থানায় নিখোঁজ ডায়রি করা হয় পরিবারের তরফে। তারপর থেকে প্রায় প্রতিদিন থানায় গিয়ে ওই মহিলার খোঁজে হন‍্যে হয়ে পড়ে আছে পরিবার! তবে, শুধু আশ্বাস ছাড়া কিছুই মেলেনি তদন্তকারী অফিসারের কাছ থেকে।সুমিত বলেন,”এক সপ্তাহ হয়ে গেল মায়ের কোন‌ও খোঁজ এখনও অবধি পায়নি। আমরা যথেষ্ট চিন্তার মধ্যে রয়েছি। নাওয়া খাওয়া ভুলে প্রায়ই বারাসাত থানায় গিয়ে তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে খোঁজ নিচ্ছি। কিন্তু, আশ্বাস ছাড়া কিছুই পায়নি”।সে আরও বলে,”আত্মীয়ের বাড়িতে যাবে বলে বেড়িয়ে কিভাবে মা নিখোঁজ হয়ে গেল,সেটাই আমরা বুঝতে পারছিনা। পুলিশের কাছে আমাদের আর্জি, দ্রুত মায়ের খোঁজ করুক তাঁরা! আমরা যে কি অবস্থায় আছি,তা একমাত্র ভগবান‌ই জানে”। এবিষয়ে বারাসত পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিশ্ব চাঁদ ঠাকুরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,”ওই সিভিক ভলেন্টিয়ারের মায়ের খোঁজ পেতে আমরা সবরকমের চেষ্টা চালাচ্ছি। এখানে কোন‌ও রকম ঢিলেমি দেওয়ার ব‍্যাপার নেই।আশা করছি, তাড়াতাড়িই তাঁর খোঁজ পাওয়া যাবে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

three × four =